চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

মহাকাশ-গবেষণার স্বীকৃতি: পদার্থবিদ্যায় নোবেল পেলেন ৩ বিজ্ঞানী

চলতি বছর পদার্থবিদ্যায় নোবেল পুরস্কার চলে গেছে পৃথিবীর সীমানাকে ছাড়িয়ে। মহাকাশ নিয়ে গবেষণায় বিশেষ কৃতিত্ব দেখিয়ে পদার্থবিদ্যায় এবারের নোবেল জয় করে নিয়েছেন তিন মহাকাশবিজ্ঞানী।

‘মহাবিশ্বের বিবর্তন ও মহাজগতে পৃথিবীর অবস্থান বিষয়ে আমাদের ধারণা তৈরিতে অবদান’ রাখায় এই আন্তর্জাতিক পাচ্ছেন তারা।

বিজ্ঞাপন

জেমস পিবলস, মিশেল মেয়র এবং ডিডিয়ের কিয়েলজ-এই তিনজনের মধ্যে দুই ভাগে ভাগ হতে যাচ্ছে এবারের পুরস্কারটি। পিবলস ‘পদার্থবৈজ্ঞানিক সৃষ্টিতত্ত্ব নিয়ে তত্ত্বীয় আবিষ্কারে’র জন্য এবং মিশেল মেয়র ও ডিডিয়ের কিয়েলজ ‘সূর্যের মতোই একটি নক্ষত্রকে আবর্তনকারী একটি গ্রহ আবিষ্কারে’র জন্য ২০১৯ সালে পদার্থবিদ্যায় নোবেল পাচ্ছেন।

বিজ্ঞাপন

যুক্তরাষ্ট্রের প্রিন্সটন ইউনিভার্সিটির গবেষক ও মহাকাশবিজ্ঞানী জেমস পিবলস গত ২০ বছরেরও বেশি সময় ধরে গবেষণা করে মহাবিশ্বের গঠন ও ইতিহাস নিয়ে একটি তত্ত্বীয় কাঠামো দাঁড় করিয়েছেন। এই কাঠামোটিই বিগ ব্যাং থেকে শুরু করে বর্তমানকাল, অর্থাৎ মহাবিশ্বের উৎপত্তি থেকে পুরো ইতিহাস সম্পর্কে আমাদের আধুনিক ধারণার ভিত্তি।

আর এই যুগান্তকারী কার্যকাঠামোর স্বীকৃতি হিসেবেই এই সম্মাননা পাচ্ছেন পিবলস।

অন্যদিকে মিশেল মেয়র ও ডিডিয়ের কিয়েলজ সৌরজগতের বাইরের অজানা জগৎ খুঁজে বের করার উদ্দেশ্যে আমাদের ছায়াপথ মিল্কিওয়ে নিয়ে গবেষণা করছেন প্রায় তিন দশক ধরে। ১৯৯৫ সালে তারা প্রথম সৌরজগতের বাইরে ‘৫১ পেগাসি’ নামের প্রায় সূর্যের মতোই আরেকটি নক্ষত্রের চারপাশে আবর্তনরত একটি গ্রহ আবিষ্কার করেন।

এটিই ছিল সৌরজগতের বাইরে সূর্যের অনুরূপ কোনো তারাকে আবর্তনকারী প্রথম গ্রহের আবিষ্কার। এই অসাধারণ আবিষ্কারের পুরস্কার হিসেবে যৌথভাবে এবার নোবেল পেলেন ইউনিভার্সিটি অব জেনেভার দুই গবেষক মেয়র ও কিয়েলজ।

Bellow Post-Green View