চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

ভারতে কার্যক্রম স্থগিত করছে অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল

ভারতীয় সরকারের ‘প্রতিশোধমূলক’ আচরণের কারণে দেশটিতে নিজেদের কার্যক্রম স্থগিত করতে বাধ্য হয়েছে বলে জানিয়েছে অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল।

মানবাধিকার সংস্থাগুলোর মধ্যে সরকারের খুঁত খোজার চেষ্টার অভিযোগও তুলেছে তারা।

বিজ্ঞাপন

ভারতে অ্যামনেস্টির ব্যাংক অ্যাকাউন্ট ফ্রিজ করা হয়েছে, কর্মীদের ছাঁটাই করতে বাধ্য করা হয়েছে এবং তাদের সমস্ত প্রচারণা ও গবেষণা বাতিল করা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

তবে এসব অভিযোগে কোনো প্রতিক্রিয়া জানায়নি ভারতীয় সরকার।

সংস্থাটির রিসার্চ, অ্যাডভোকেসি অ্যান্ড পলিসির সিনিয়র ডিরেক্টর রজত খোসলা বলেন, ভারতে আমরা একটি অভূতপূর্ব পরিস্থিতির মুখোমুখি হয়েছি। অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের ভারতীয় অংশ খুব নিয়মতান্ত্রিকভাবে সরকারের আক্রমণ, হুমকি ও হয়রানির শিকার হয়েছে।

দিল্লির দাঙ্গা বা জম্বু ও কাশ্মীরে সহিংসতার নীরবতা নিয়ে আমরা যেসব প্রশ্ন তুলেছিলাম সেসবের কোনো জবাব দেশটির সরকার দিতে চায় না।

বিজ্ঞাপন

ভারতের ধারাবাহিক সরকার বিদেশি অর্থায়নে অলাভজনক, বিশেষত মানবাধিকার সংস্থাগুলি সম্পর্কে সতর্ক থেকেছে বরাবরই।

এর আগে ২০০৯ সালে একবার ভারতে অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের কার্যক্রম স্থগিত করা হয়। কারণ হিসেবে তখন এই মানবাধিকার সংস্থাটি জানিয়েছিলো, বিদেশ থেকে তহবিল পাওয়ার জন্য তাদের লাইসেন্স বারবার প্রত্যাখ্যান করা হচ্ছিলো। ভারতে তখন কংগ্রেস ক্ষমতায় ছিল, বর্তমানে তারা বিরোধী দলে।

গত কয়েক বছর ধরে বিদেশি তহবিল গ্রহণকে কেন্দ্র করে ভারতে নিয়ম কঠোর করা হয়েছে এবং হাজার হাজার অলাভজনক প্রতিষ্ঠানের বিদেশ থেকে অর্থ গ্রহণ নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

বেশ কিছুদিন আগে ভারত সরকার বলেছিলো, বিদেশি অর্থায়নে দেশের আইন লঙ্ঘন করায় অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের বিরুদ্ধে তদন্ত চলছে।

রজত খোসলা বলেন, ৭০টি দেশে আমাদের কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। এর আগে শুধু ২০১৬ সালে রাশিয়াতে আমাদের কার্যক্রম বন্ধ করতে বাধ্য হই। আমি আশা করি সারা বিশ্বের মানুষ এই বিষয়টিতে নজর রাখবে। ভারী হৃদয়, যন্ত্রণা ও শোকের অনুভূতি নিয়ে আমরা এমন সিদ্ধান্ত নিচ্ছি।

তবে ভারতে নিজেদের আইনি লড়াই চালিয়ে যাবে বলে জানিয়েছে অ্যামনেস্টি।