চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

ভারতের পাশে অস্ট্রেলিয়ানরা ‘প্রাইমারি স্কুলের ছাত্র’!

প্রায় ভাঙাচোরা একটা দল নিয়ে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে তাদের মাঠেই ‘দাদাগিরি’ করে গেছে ভারত। সেরা একাদশের অধিকাংশই চোটে থাকার পরও তরুণ একটা দল নিয়ে যেভাবে সিরিজ জিতে নিয়ে গেছে আজিঙ্কা রাহানের দল তাতে বেজায় নারাজ অজি কিংবদন্তি গ্রেগ চ্যাপেল। ভারতীয় ক্রিকেটারদের দেখে তার মনে হয়েছে, অস্ট্রেলিয়ার তরুণ ক্রিকেটাররা এখনও ‘প্রাইমারি স্কুলে’ পড়েন। ক্রিকেটের প্রতিভা অন্বেষণে নতুন করে বিনিয়োগ বাড়ানোর তাগাদা দিয়েছেন সাবেক এই অধিনায়ক।

স্থানীয় এক পত্রিকার কলামে চ্যাপেল লিখেছেন, ‘আমাদের তরুণরা সপ্তাহ শেষের যোদ্ধা। ভারতীয় ক্রিকেটারদের দেখুন। অনূর্ধ্ব-১৬ বয়স থেকেই ওরা প্রতিযোগিতামূলক ক্রিকেটের চ্যালেঞ্জ নিতে শিখে যায়। যতদিনে ওরা প্রথম একাদশে সুযোগ পাচ্ছে, ততদিনে অলরাউন্ড দক্ষতা শানিয়ে পুরোপুরি তৈরি হয়ে গিয়েছে। যেকারণে জাতীয় দলে তখন ওদের সাফল্যের হার অনেক বেড়ে যায়।’

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

এরপরই তরুণ দুই অজি ক্রিকেটার উইল পিউকোভস্কি ও ক্যামেরন গ্রিনকে নিয়ে নিজের ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন চ্যাপেল। দুজনেরই অভিষেক হয়েছে বোর্ডার-গাভাস্কার ট্রফিতে। নিজ মাটিতে সিরিজকে স্মরণীয় করে রাখার মত কিছু করতে পারেননি একজনও, ‘আমার লিখতে ভয় হচ্ছে। কিন্তু ভারতীয় দলের সঙ্গে অভিজ্ঞতার তুলনায় উইল পিউকোভস্কি, ক্যামেরন গ্রিনরা এখনও প্রাইমারি স্কুলের ছাত্র।’

ভারত-অস্ট্রেলিয়ার মধ্যকার ক্রিকেটীয় বিনিয়োগের কথাও কলামে তুলে ধরেছেন চ্যাপেল, ‘তরুণ ক্রিকেটারদের পিছনে লক্ষ লক্ষ টাকা খরচ করছে বিসিসিআই। সেখানে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া শেফিল্ড শিল্ড করার জন্য মাত্র ৪৪ মিলিয়ন ডলার দিচ্ছে। পার্থক্যটা ভারত মহাসাগরের থেকেও বড়। টেস্ট ক্রিকেটে প্রতিযোগিতামূলক খেলায় নামার আগে কী দরকার সেটা যদি ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া বুঝতে না পারে এবং কোথায় বিনিয়োগ করতে হবে সে ব্যাপারে প্রশাসনের কর্তারা ভাবনাচিন্তা বদল না করেন, তাহলে খুব শীঘ্রই আমরা অনেকটা পিছিয়ে পড়ব।’