চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

ভর্তি জালিয়াতি করে ডাকসু নেতা: ভিসি-ডিনের পদত্যাগসহ ৩ দাবি

জালিয়াতি ও ক্ষমতার অপব্যবহার করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়াদের ডাকসু পদ শূন্য ঘোষণা করে উপনির্বাচনসহ ৩ দাবি নিয়ে রাজু ভাস্কর্যের সামনে মানববন্ধন করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।

তাদের অন্য দুটি দাবি হলো: ক্ষমতার অপব্যবহার ও নৈতিক স্খলনের দায়ে বাণিজ্য অনুষদের ডিনের পদত্যাগ এবং চিরকুট সুপারিশে ভর্তি করানোর দায়ে ঢাবি ভিসি ও ডাকসু সভাপতির পদত্যাগ।

বিজ্ঞাপন

রোববার বিকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসিতে সন্ত্রাস বিরোধী রাজু ভাস্কর্যে এক মানববন্ধনে এসব দাবি জানানো হয়। মানববন্ধনে ডাকসু নির্বাচনে অংশ নেওয়াসহ প্রায় ৩০ জন শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিলেন।

বিজ্ঞাপন

মানববন্ধনে কোটা সংস্কার আন্দোলনের নেতা হাসান আল মামুন বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ও ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদের ডিন চিরকুটের মাধ্যমে ছাত্রলীগের ৩৪ জন নেতাকে যে ভর্তি হওয়ার সুযোগ দিয়েছেন সেটা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাদেশ বিরোধী কাজ ও নৈতিকতার স্খলন। তাই তাদের উচিত দায়িত্ব থেকে পদত্যাগ করা। এছাড়া ডাকসুর পদগুলো থেকে ছাত্রলীগের আটজন নেতাকে বহিস্কার করে তাদের শূণ্য পদগুলোতে পুনরায় নির্বাচন দিতে হবে।’

অভিযোগের বিষয়ে ব্যাবসায় অনুষধের ডিন ড. শিবলী রুবাইয়াতুল ইসলাম বলেন: এখানে আসলে একটি ইতিবাচক কাজকে পুরোপুরি নেতিবাচক হিসেবে দেখানো হয়েছে।ঢাবির অনেক গ্যাজুয়েট আর্থিক অস্বচ্ছলতার কারণে গ্যাজুয়েশন শেষ করেই চাকরিতে প্রবেশ করে।আমি আমাদের সেই সব শিক্ষার্থীদের সুবিধার্থে তারা যেন সকালে চাকরি করে বিকেলে ইভিনিং এর সাথে ক্লাস করতে পারে সেই ব্যবস্থা করেছি।ওরা আমাদের নিয়মিত ছাত্র। তাদের আবার নতুন করে কেন পরীক্ষা দিতে হবে?

যাদের গ্যাজুয়েশন করার পর আর্থিক অসুবিধার কারণে দুই থেকে তিন বছরের একটা গ্যাপ হয়েগেছে তারাই এ সুবিধাটা ভোগ করছে।কিন্তু এখানে পরীক্ষা না দেয়া শিক্ষার্থী একজনও নেই। আমাদের নিয়মিত ছাত্রদের আমরা মৌখিক পরীক্ষার মাধ্যমে নির্বাচন করেছি তাদেরকে সাহায্য করার জন্য।

প্রসঙ্গত, সম্প্রতি অভিযোগ ওঠে ভর্তি পরীক্ষা ছাড়াই ছাত্রলীগের সাবেক – বর্তমান ৩৪ জন নেতানেত্রী ব্যাংকিং এবং ইনসুরেন্স বিভাগের সান্ধ্যকালীন মাস্টার্স কোর্সে ভর্তি হন। যাদের মধ্যে ৮ জন ডাকসু এবং হল সংসদে ৮ জন বিজয়ী হয়েছেন।

Bellow Post-Green View