চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

ব্যাপক পতনে ৫ বছর আগের সূচকে ফিরল পুঁজিবাজার

চলতি সপ্তাহের দ্বিতীয় কর্মদিবসে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) মূল্য সূচকের ব্যাপক পতনে শেষ হয়েছে পুঁজিবাজারের লেনদেন। এদিন ডিএসইর মূল্য সূচক ৮৮ পয়েন্ট বা ২ শতাংশ কমেছে। আর চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের সার্বিক সূচক কমেছে ২৪৫ পয়েন্ট।

তবে এদিন ডিএসইতে লেনদেন বাড়লেও সিএসইতে কমেছে। আগের দিন রোববার সূচক সামান্য বেড়েছিল।

বাজার বিশ্লেষণে দেখা যায়, ডিএসই প্রধান বা ডিএসইএক্স সূচক ৮৮ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ৪ হাজার ১২৩ পয়েন্টে; যা গত ৪ বছর ৭ মাসের মধ্যে সর্বনিম্ন। এর আগে ২০১৫ সালের ৭ জুন এই সূচকের অবস্থান ছিল ৪ হাজার ১২২ পয়েন্ট।

অন্য সূচকগুলোর মধ্যে ডিএসইএস বা শরীয়াহ্ সূচক ২০ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ৯২৯ পয়েন্টে এবং ডিএস৩০ সূচক ২৭ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ৩৮৭ পয়েন্টে।

ডিএসইতে আজ ২৮৬ কোটি ৭৭ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। যা গত কার্যদিবস থেকে ২৫ কোটি ৯৫ লাখ টাকা বেশি। গতকাল লেনদেনের পরিমাণ ছিল ২৬০ কোটি ৮২ লাখ টাকা।

আজ ডিএসইতে ৩৫৪টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের শেয়ার লেনদেন হয়েছে। এর মধ্যে দর বেড়েছে ২১টির, কমেছে ৩১৩টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ২০টির।

সবচেয়ে বেশি লেনদেন হওয়া শীর্ষ ১০ কোম্পানি হলো- লাফার্জহোলসিম, এডিএন টেলিকম, রিংশাইন, খুলনা পাওয়ার, বিকন ফার্মা, ওয়েস্টার্ন মেরিন শিপইয়ার্ড, নর্দার্ণ জুট, স্ট্যান্ডার্ড ইন্স্যুরেন্স, গ্রামীণ ফোন এবং এসএস স্টিল।

চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ২৪৫ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ১২ হাজার ৫৬৩ পয়েন্টে। সিএসইতে হাত বদল হওয়া ২৫২টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে শেয়ার দর বেড়েছে ২৮টির, কমেছে ২০৬টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ১৮টির দর।

সিএসইতে ১৩ কোটি ৩৫ লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে। আগের দিনের চেয়ে ২ কোটি টাকা কম। আগেরদিন সিএসইতে লেনদেন হয়েছিল ১৫ কোটি টাকার।