চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

বেসরকারি হাসপাতালে স্বাস্থ্যকর্মীদের সুরক্ষা উপকরণ নিশ্চিতের নির্দেশ

বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিকে দায়িত্বরত ডাক্তার, নার্স ও অন্য স্বাস্থ্যকর্মীদের জন্য প্রয়োজনীয় পিপিই, গ্লাভস, মাস্ক ও স্বাস্থ্য সুরক্ষা উপকরণ নিশ্চিতের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

বিজ্ঞাপন

স্বাস্থ্য সচিব, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ও বাংলাদেশ বেসরকারি ক্লিনিক ও ডায়গনস্টিক মালিক সমিতির সভাপতি-সম্পাদকের প্রতি এই নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

এছাড়াও সংক্রামক রোগ (প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণ) আইন অনুসারে গঠিত উপদেষ্টা কমিটি দেশে করোনা প্রতিরোধে কি কি কার্যক্রম গ্রহণ বা সুপারিশ করেছে তার একটি প্রতিবেদন আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে আদালতে দিতে বলা হয়েছে।

এ সংক্রান্ত রিট আবেদনের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে বিচারপতি ওবায়দুল হাসানের ভার্চুয়াল হাইকোর্ট বেঞ্চ সোমবার এই নির্দেশ দিয়েছেন। পাশাপাশি আদালত বিষয়টি হাইকোর্টের নিয়মিত বেঞ্চে শুনানির জন্য নির্ধারণ করেছেন।

রিট আবেদনের পক্ষে ভার্চুয়াল শুনানিতে ছিলেন আইনজীবী মনজিল মোরসেদ। আর রাষ্ট্রপক্ষের হয়ে শুনানিতে অংশ নেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।

গত ১৪ মে হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশের পক্ষে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মনজিল মোরসেদ জনস্বার্থে এই রিট আবেদনটি করেন।

সেদিন রিটের বিষয়ে আইনজীবী মনজিল মোরসেদ চ্যানেল আই অনলাইনকে বলেন, ‘সরকার করোনায় আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা ও টেস্টের জন্য নির্দিষ্ট কয়েকটি হাসপাতালে করার ব্যবস্থা করেছে। আর এই সময়ে সাধারণ জ্বর, সর্দি, গলা ব্যথার রোগীদেরও ডাক্তারের শরণাপন্ন হওয়ার প্রয়োজনীয়তা দেখা দেয়। কিন্তু এরই মধ্যে বিভিন্ন মিডিয়ায় রিপোর্ট হয়েছে যে, দেশের বিভিন্ন বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিকে রোগীরা চিকিৎিসা সেবা পাচ্ছে না এমনকি অ্যাম্বুলেঞ্চে রোগী মারা যাচ্ছে।’

এমন প্রেক্ষাপটে দেশের বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিকগুলোতে সকল ধরনের রোগীদের জন্য স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করার নির্দেশনা চেয়ে রিটটি করা হয়েছে।

আইনজীবী মনজিল মোরসেদ সেদিন আরো বলেন, ‘রিটে বেসরকারি হাসপাতাল-ক্লিনিকে পিসিআর মেশিনে করোনা টেস্টের ব্যবস্থা করে চিকিৎসা দেয়ার নির্দেশনা চাওয়া হয়েছে। আর বেসরকারি হাসপাতাল-ক্লিনিকগুলোর প্রবেশ পথে বা গেটে ‘হলুদ জোন’ করে সকল রোগীদের চিকিৎসার ব্যাবস্থা করার এবং হলুদ জোনে দায়িত্বরত ডাক্তার, নার্স ও অন্যদের চিকিৎসার জন্য প্রয়োজনীয় পিপিই, গ্লাভস, মাস্ক ও স্বাস্থ্য সুরক্ষা উপকরণ নিশ্চিতের নির্দেশনা চাওয়া হয়েছে।’

‘‘এছাড়া, সংক্রামক রোগ (প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণ) আইন-২০১৮ এর ৬ ধারা অনুসারে গঠিত উপদেষ্টা কমিটি দেশে করোনা প্রতিরোধে কি কি কার্যক্রম গ্রহণ বা সুপারিশ করেছে তার একটি প্রতিবেদন আদালতে দাখিলের নির্দেশনা চাওয়া হয় এই রিট আবেদনে।’’