চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

বেশি বেশি পুষ্টিগুণে ভরা যেসব ফল

শরীর ঠিকঠাক রাখার জন্য আমরা কত কিছুই না করি। খাবারে যেমন নতুন নতুন কিছু যোগ করি। তেমনই কিছু না কিছু বাদও দিতে হয় আমাদের। কিন্তু কিছু কিছু ফল আছে যেগুলো আমরা যতটা ভাবি তার থেকেও বেশি উপকারী।
জেনে নিন সেই সব ফলের তালিকা। আর সেসবের গুণাবলী। খাবারের তালিকায় খানিকটা পরিবর্তন আনতে পারলেই সুস্থ থাকতে পারবেন অনেকখানি।

পেঁপে: ভিটামিন সি তে ভরপুর এই ফলটি রাখতে পারেন আপনার খাবারের তালিকায়। ভিটামিন সি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়, আথ্রাইটিসের সমস্যা থেকে রক্ষা করে। এমনকি হার্টের সমস্যা থেকেও রেহাই দেয়। ফাইবার আর অ্যান্টিঅক্সিডেন্টও রয়েছে প্রচুর এই ফলটিতে। তারাই একসঙ্গে কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণে সহায়ক হিসেবে কাজ করে। হালকা ক্ষুধার সময়ে তাই নাস্তা হিসেবে বেছে নিতে পারেন এই ফলটি। ক্যালোরির ভয় ছাড়াই নিশ্চিন্তে খেতে পারবেন। এমনকি নারীদের মাসিকের সমস্যা থেকেও রেহাই দিবে পেঁপে। রক্ষা করবে সেই সময়কালীন ব্যথার হাত থেকেও।

বিজ্ঞাপন

fruits-2কিউই: ছোট্ট এই ফলটিরও পুষ্টিগুণ নেহাত কম নয়। কম ক্যালোরি কিন্তু বেশি পুষ্টির খাবারটির প্রতি তাই ভালোবাসা সবার বেড়েই চলেছে। ভিটামিন সিতে ভরপুর এই খাবারটি হার্টের সমস্যা এবং ক্যান্সারের বিরুদ্ধেও প্রতিরোধ গড়ে তোলে। ফাইবার আর পটাশিয়ামে ভরপুর এই খাবারটি হার্টের জন্যও ভালো। ডাক্তাররাও হার্টের বেশি বেশি পটাশিয়াম খাওয়া এবং সোডিয়াম কম খাওয়ার উপর জোড় দিচ্ছেন। কিউই ফলটি ঘুম ঠিকঠাক করার কাজেও বেশ কার্যকর। রাতভর নিরবিচ্ছিন্ন ঘুমের ক্ষেত্রে এর জুড়ি মেলা ভার।

বিজ্ঞাপন

fruits-3আঙুর: আঙুর সবসময় আপনার খাবারের তালিকার শীর্ষে থাকবে তেমনটা না হলেও হয়তো একটু মিষ্টি কিন্তু স্বাস্থ্যকর খাবার হিসেবে এটির পক্ষপাতি আপনি। যদি শরীরের হাড়ের শক্তি বাড়াতে চাইলে এই খাবারটির দিকে ঝুঁকতে পারেন। হার্টের ব্লক সরাতেও এটি বেশ কার্যকর ফলে হার্ট এটাকের সমস্যা থেকে রেহাই মিলতে পারে। এতে থাকা এন্টিঅক্সিডেন্ট বয়স কমাতেও সহায়ক। শরীর থেকে ক্ষতিকারক টক্সিন বের করে দিতেও বেশ কাজে আসে এই ফলটি। ক্লান্তি দূর করতে চাইলে এক গ্লাস আঙুরের জুস পান করতে পারেন। এতে থাকা আয়রণ নিমেষে আপনাকে শক্তি যোগাতে বেশ কার্যকর।

ড্রাগন ফল: সুন্দর চেহারার পাশাপাশি আরো কিছু গুণ আছে এই ফলটির। ভিটামিন সি, মাল্টিপল বি ভিটামিন, প্রেটিন, ক্যারোটিন এবং ভালো ফ্যাটি এসিডে ভরপুর এই খাবারটি। ক্যালসিয়াম থাকার কারণে ফলটি দাঁত ও হারের জন্যও ভালো। আর শরীরে এনার্জি যোগাতে এতে আছে প্রচুর আয়রন।
ফলটির বীজে থাকা তেল খাবার হজমে সাহায্য করে। রয়েছে প্রচুর ওমেগা-৩ ও ওমেগা-৬ ফ্যাটি এসিড যা কিনা হার্টের সমস্যা থেকে রেহাই দেয়।

fruits-4অ্যাভোকাডো: খুব বেশি মিষ্টি না হলেও অনেকে এই ফলটি বেশ পছন্দ করেন। পুষ্টিবিদরা বলছেন একটি অ্যাভোকাডোতে একটি কলার থেকেও বেশি পটাশিয়াম থাকে। খানিকটা ফ্যাট বেশি থাকলেও এই ফলটি শরীরে ভালো কোলেস্টেরল তৈরি করে। ফলে সুস্বাস্থ্য বজায় থাকে। আর সেটা হার্টের জন্যও ভালো।

Bellow Post-Green View