চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

বুড়িগঙ্গা দূষণ: চার প্রতিষ্ঠানকে ২০ লাখ টাকা জরিমানা

বুড়িগঙ্গা দূষণকারী শ্যামপুরের চারটি শিল্প প্রতিষ্ঠানকে ৫ লাখ টাকা করে জরিমানা করেছে হাইকোর্ট। এই চারটি শিল্পপ্রতিষ্ঠান হল: মিতা টেক্সটাইল, অভিজিৎ ডায়িং, চাঁদপুর টেক্সটাইল ও শারমীন টেক্সটাইল।

চার শিল্প প্রতিষ্ঠানের মালিকদের করা চারটি আলাদা রিটের পর জারি করা রুল খারিজ করে বিচারপতি গোবিন্দ চন্দ্র ঠাকুর ও মোহাম্মদ উল্লাহ’র হাইকোর্ট বেঞ্চ মঙ্গলবার এই রায় দেয় এবং এই রায়ের অনুলিপি পাওয়ার ১৫ দিনের মধ্যে জরিমানার টাকা পরিবেশ অধিদপ্তরে জমা দিতে বলা হয়েছে। আর পরিবেশ অধিদপ্তরকে ওই টাকা বুড়িগঙ্গার দূষণ রোধে ব্যয় করতে নির্দেশ দিয়েছে আদালত।

বিজ্ঞাপন

আদালতে রিট আবেদনকারীদের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী সিদ্দিকুর রহমান ও মো. রায়হান। পরিবেশ অধিদপ্তরের পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট মনজিল মোরসেদ ও অ্যাডভোকেট আমাতুল করিম।

আজকের রায়ের বিষয়ে আইনজীবী মনজিল মোরসেদ বলেন: বুড়িগঙ্গার দূষণরোধ হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশ (এইচআরপিবি)’র জনস্বার্থের মামলার রায়ে বর্জ্য শোধনাগার বা ইটিপি প্ল্যান্ট (ইফ্লুয়েন্ট ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট)না থাকা বুড়িগঙ্গা পাড়ের শিল্প প্রতিষ্ঠান, কারখানা বন্ধে ২০১০ সালে রায় দিয়েছিল উচ্চ আদালত। রায়ের নির্দেশনা অনুযায়ী পরিবেশ অধিদপ্তর শ্যামপুরের এই চার শিল্প প্রতিষ্ঠানের গ্যাস, বিদ্যুৎ, পানির লাইন বিচ্ছিন্ন করে বন্ধ করে দেয়। তখন পরিবেশ অধিদপ্তরের অভিযানের বিরুদ্ধে বেশ কিছু শিল্প প্রতিষ্ঠান, কারাখানার মালিকরা আপিল বিভাগে আসেন। আপিল বিভাগ তখন তাদের সে আবেদনে সাড়া না দিয়ে পরিবেশ অধিদপ্তরের অভিযানকে চলমান রাখার আদেশ দেন।

কিন্তু আপিল বিভাগের সে আদেশ গোপন করে পরিবেশ অধিদপ্তরের সিদ্ধান্ত চ্যালেঞ্জ করে এই চার শিল্প প্রতিষ্ঠানের মালিক হাইকোর্টে রিট করেন। হাইকোর্ট তখন স্থিতাবস্থা দিয়ে রুল জারি করেছিলেন। পরে ২০১৫ সালে পরিবেশ অধিদপ্তর নোটিশ দেওয়ার পরও তারা ইটিপি ছাড়াই শিল্প প্রতিষ্ঠান চালিয়ে আসছিলেন। আজ আদালত আগের সেই স্থিতাবস্থা দিয়ে জারি করা রুল খারিজ করে রায় দিলেন।

বিজ্ঞাপন