চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

বীণ বাজিয়ে যা সাপুড়ে…

মাথার উপরে দুহাত তুলে নাচের মুদ্রায় সাপের মাথা। বুনো উল্লাসে মুশফিকুর রহিম কোমর দোলাচ্ছেন। রাতের প্রেমাদাসায় তখন লঙ্কা পোড়ার হাহাকার। রোববার সকাল নাগাদ দৃশ্যটি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়ে গেছে। আলোচনায় এসেছে বিশ্বগণমাধ্যমেও।

৩৫ বলে পাঁচটি চার, চারটি ছয়ে অপরাজিত ৭২ রানের ইনিংস খেলা মুশফিকের ওই উদযাপন নিয়ে রোববার আলাদা প্রতিবেদন করেছে হিন্দুস্থান টাইমস। প্রতিবেদনে বলা হয়, শ্রীলঙ্কাকে হারানোর অন্যতম কারিগর মুশফিকের নাগিন ড্যান্স অন্তর্জাল দুনিয়ায় ভাইরাল হয়ে গেছে।

‘নাগিন ড্যান্স’ নিয়ে আলাদা প্রতিবেদন করেছে ভারতের আরো কয়েকটি প্রভাবশালী গণমাধ্যম। তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য এনডিটিভ, ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস এবং ক্রিকেটনেক্সট।

এনডিটিভি তাদের প্রতিবেদনে ‘নাগিন ড্যান্স’ নিয়ে করা ভারতীয়দের বেশ কয়েকটি টুইট তুলে ধরেছে।

 

Advertisement

সুরভী গোয়েকড় নামের একজন লিখেছেন, ‘ম্যাচ জেতার পর আমি এতদিন যত মজার উদযাপন দেখেছি, তার মধ্যে মুশফিকুর রহিমের নাগিন ড্যান্স সেরা।’

দেবদীপ্তা পাল নামের এক নারী ক্রিকেট ভক্ত লিখেছেন, ‘মুশফিকের নাগিন ড্যান্স আমার হৃদয় জিতে নিয়েছে।’

নাগিন ড্যান্সে’র ইতিকথা
এই নাচের আবিষ্কারক মূলত মুশফিক নন। সদ্য জাতীয় দলে আসা নাজমুল ইসলাম অপু। বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে (বিপিএল) খেলার সময় রাজশাহীর ড্যারেন স্যামিকে তিনি এমন ভঙ্গিতে ভয় দেখাতেন। সেই থেকে একদিন মাঠেও করে ফেলেন।

গত বছর ২৮ নভেম্বর চট্টগ্রামে বসে অপু বলেন, ‘গতবার রাজশাহীতে খেলার সময় ড্যারেন স্যামিকে এটা দেখালে ভয় পেত। সেখান থেকেই শুরু। তারপর একদিন ম্যাচেও করেছি। এরপর তো হয়ে গেছে।’

ঘরের মাঠের শ্রীলঙ্কা সিরিজ দিয়ে অপু জাতীয় দলে আসেন। লাল-সবুজের জার্সিতেও তাকে এই উদযাপন করতে দেখা যায়।