চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

বিশ্বে করোনায় মৃত্যু ২৯ লাখ ছাড়াল

শেষ  ২৪ ঘণ্টায়  বিশ্বে করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হয়ে প্রায় ১৩ হাজার মানুষের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মোট মৃত্যু ২৯ লাখ ছাড়িয়ে গেছে।

এই ১৩ হাজার মৃত্যুর মধ্যে শুধু ব্রাজিলেই একদিনে মারা গেছে ৩ হাজার ৭৩৩ জন। দেশটিতে ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত হয়েছে ৯০ হাজার ৯৭৩ জন।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

করোনাভাইরাসের পরিসংখ্যান নিয়ে কাজ করা প্রতিষ্ঠান ওয়ার্ল্ডোমিটার জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার সকাল পযর্ন্ত ৬ লাখ ৫১ হাজার ৮৩৮ জন নতুন আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে গত ১ বছর তিন মাসে বিশ্বজুড়ে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ১৩ কোটি ৩৭ লাখ ছাড়িয়ে গেছে।

এই সময়ে সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত হয়েছে দক্ষিণ এশিয়ার দেশ ভারতে ১ লাখ ২৬ হাজার ৩১৫ জন। দেশিটিতে মৃত্যু হয়েছে ৬৬৪ জন। শুধু তাই নয়, ভারতে এই যাবতকালের সর্বোচ্চ করোনা রোগী শনাক্তের রেকর্ড এটি।

করোনায় সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত দেশ যুক্তরাষ্ট্র। যুক্তরাষ্ট্রে করোনায় একদিনে সংক্রমিত শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ৭৫ হাজার ১৮৩ জন, মারা গেছেন ৮৭৩ জন।

হঠাৎ করে ৩ দশমিক ৫৬ হারে মৃত্যু হার বাড়তে শুরু করেছে ইউরোপের দেশ ইতালিতে। দেশটিতে ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ৬২৭ জন, যেখানে ফ্রান্সে ৪৩৩, স্পেনে ১২৬, জার্মানিতে ৩১২ ও রাশিয়াতে ৩৭৪ জন।

বিজ্ঞাপন

পরিসংখ্যান বলছে, ল্যাটিন আমেরিকার দেশ ব্রাজিলের মতোই করোনার ভয়াবহ অবস্থার দিকে যাচ্ছে মেক্সিকো। দেশটিতে একদিনে মৃত্যু ৬০৩ জন আক্রান্ত ৪ হাজার ৬০০।

করোনার মৃত্যু দৃশ্য পর্যালোচনা করলে দেখা যায়, ৩১ মার্চ থেকে করোনায় মৃত্যু বাড়ছে পোলান্ডে দেশটিতে সাতদিনের ব্যবধানে মৃত্যু হয়েছে ৬৩৮ জন।

গত বছরের ডিসেম্বরে চীনের উহানে প্রথম করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়। চীনে করোনায় প্রথম কোনো রোগীর মৃত্যু হয় ৯ জানুয়ারি। তবে তার ঘোষণা আসে ১১ জানুয়ারি।

১৩ জানুয়ারি চীনের বাইরে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয় থাইল্যান্ডে। পরে বিভিন্ন দেশে করোনা ছড়িয়ে পড়ে।

করোনার প্রাদুর্ভাবের পরিপ্রেক্ষিতে গত বছরের ৩০ জানুয়ারি বৈশ্বিক স্বাস্থ্য জরুরি অবস্থা ঘোষণা করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)। ২ ফেব্রুয়ারি চীনের বাইরে করোনায় প্রথম কোনো রোগীর মৃত্যুর ঘটনা ঘটে ফিলিপাইনে।

১১ ফেব্রুয়ারি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা করোনাভাইরাস থেকে সৃষ্ট রোগের নামকরণ করে ‘কোভিড-১৯’।

১১ মার্চ করোনাকে বৈশ্বিক মহামারি ঘোষণা করে ডব্লিউএইচও।