চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

বিপর্যস্ত বিশ্বে করোনায় মৃত্যু ৩০ লাখ ছুঁইছুঁই

করোনাভাইরাসে বিপর্যস্ত বিশ্ব। এক বছরের বেশি সময় পরও কিছুতেই নিয়ন্ত্রণে আসছে না মহামারি আকারে ছড়িয়ে পড়া এই ভাইরাস। বরং আরও শক্তিশালী হয়ে নতুন নতুন রূপে দেখা দিচ্ছে। থামছে না মৃত্যুর মিছিল। এরই মধ্যে মৃত্যুর সংখ্যা ছাড়িয়েছে ২৯ লাখ ৮৫ হাজার ৪২৫। 

করোনাভাইরাসের বিভিন্ন পরিসংখ্যান রাখা ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটার্স ডট ইনফো বলছে, বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত বিশ্বে কোভিড-১৯ আক্রান্ত শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ১৩ কোটি ৮৮ লাখ ২৬ হাজার ৪ জন। মৃত্যু হয়েছে ২৯ লাখ ৮৫ হাজারের বেশি মানুষের। সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১১ কোটি ১৬ লাখ ৮ হাজার ৩৯৩ জন।

ওয়ার্ল্ডোমিটার্স ডট ইনফো আরও বলছে, জানুয়ারির ৬ তারিখের পর হঠাৎ করেই ভয়াবহ আকারে বাড়ছে শনাক্ত এবং মৃত্যু। গত ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বব্যপী আক্রান্ত হয়েছে ৮ লাখ ৩ হাজার ১৯৪জন। মৃত্যু হয়েছে সাড়ে ১৩ হাজার মানুষের।

বিশ্বে করোনায় সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত দেশ যুক্তরাষ্ট্র। দেশটিতে একদিনে মৃত্যু হয়েছে ৯১৫ জনের। আক্রান্ত ৭৮ হাজার ৪৪৯ জন। এখন পর্যন্ত সেখানে করোনায় আক্রান্ত হয়েছে ৩ কোটি ২১ লাখ ৪৯ হাজার ২২৩ জন। মারা গেছেন ৫ লাখ ৭৮ হাজার ৯২ জন।

বিজ্ঞাপন

বেশি ক্ষতিগ্রস্ত দেশের তালিকায় ভারতের অবস্থান দ্বিতীয়। শনাক্তের দিক দিয়ে গত কয়েকদিন ধরে রেকর্ড করছে দেশটি। গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত হয়েছে ১ লাখ ৯৯ হাজার ৫৫৯জন। মৃত্যু ১ হাজার ৩৭ জনের।

ভারতে এখন পর্যন্ত করোনা আক্রান্ত হয়েছে ১ কোটি ৪০ লাখ ৭০ হাজার ৮৯০ জন। আর মারা গেছেন ১ লাখ ৭৩ হাজার ১৫২ জন।

ব্রাজিল আছে তৃতীয় অবস্থানে। সেখানে করোনায় সংক্রমিত শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ১ কোটি ৩৬ লাখ ৭৭ হাজার ৫৫৬ জন। লাতিন আমেরিকার দেশটিতে করোনায় মারা গেছেন ৩ লাখ ৬২ হাজার ১৮০ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে মৃত্যু হয়েছে  ৩ হাজার ৪৬৫ জনের এবং আক্রান্ত ৭৬ হাজার।

২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীনের উহানে করোনাভাইরাসের উৎপত্তি। ১১ ফেব্রুয়ারি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা করোনাভাইরাস থেকে সৃষ্ট রোগের নামকরণ করে ‘কোভিড-১৯’। গত বছরের ১১ মার্চ করোনাকে বৈশ্বিক মহামারি ঘোষণা করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।

বিজ্ঞাপন