চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

বিনামূল্যে ভ্যাকসিন দিতে মমতার ঘোষণায় বিরক্ত বিজেপি

সম্প্রতি পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের সবাইকে বিনামূল্যে করোনা ভ্যাকসিন পৌঁছে দেওযার ঘোষণা দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এক চিঠিতে তিনি লিখেছেন, তিনি অত্যন্ত আনন্দের সঙ্গে জানাচ্ছেন যে, তার সরকার রাজ্যের সমস্ত মানুষের কাছে সম্পূর্ণ বিনামূল্যে ভ্যাকসিন পৌঁছে দেওয়ার ব্যবস্থা করছে।

মমতা আরও লিখেছেন, সমস্ত পুলিশ, হোমগার্ড, অসামরিক প্রতিরক্ষা স্বেচ্ছাসেবক, সংশোধনাগার ও বিপর্যয় মোকাবিলায় দপ্তরের কর্মীর কাছে রাজ্য সরকার এই ভ্যাকসিন পৌঁছে দেবে।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

মমতার এই ঘোষণা নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকারের দল বিজেপি বিরক্ত হয়েছে। একই সঙ্গে মমতার ঘোষণাকে ভুয়া বলতে ভুল করেনি দলটি। বিশেষ করে, পশ্চিমবঙ্গে বিজেপির কো-ইনচার্জ অমিত মালব্য মমতার এই দাবিকে মিথ্যা বলে দাবি করেছেন।

তিনি বলছেন, কেন্দ্রীয় সরকার আগেই জানিয়েছেন, দেশব্যাপী ৩ কোটি ফ্রন্টলাইন ওয়ার্কারকে প্রথমেই বিনামূল্যে ভ্যাকসিন দেওয়া হবে।

এক টুইটে তিনি বলেন, প্রথমে করোনা মোকাবিলা করতে গিয়ে বিপর্যয় ডেকে এনেছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। যা নিয়ে সরব হয়েছিলেন, চিকিৎসক থেকে পুলিশ সবাই। বর্তমানে কেন্দ্রীয় সরকার অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে দেশের ৩ কোটি ফ্রন্টলাইন ওয়ার্কারকে বিনামূল্যে করোনার ভ্যাকসিন দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছে। যার ক্রেডিট নিতে চাইছেন তিনি।

বিজ্ঞাপন

অমিত মালব্য বলেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রাজ্যে পোস্টার প্রচার করে লোকজনকে বিনামূল্যে ভ্যাকসিনে দেওয়ার কথা বলছেন, যা ভুয়া।  দিদির একই মেসেজ রাজ্যের ডাক্তার ও পুলিশ সদস্যরাও তাদের ফোনে পেয়েছেন।  যেখানে মূলত ভ্যাকসিন কোথা থেকে আসছে তা লেখা ছিলো না।

এনডিটিভি বলছে, বাংলায় ১০ কোটি জনগণকে বিনামূল্যে ভ্যাকসিন দিতে গেলে খরচ পড়বে ৫ হাজার কোটি রূপি, এর মধ্যে ইতোমধ্যে ৬ লাখ ফ্রন্টলাইনার্সের মাঝে ভ্যাকসিন কর্মসূচি শুরু হবে ১৬ জানুয়ারি থেকে। মূলত সকল ভ্যাকসিন কেন্দ্রীয় সরকারের হাতেই রয়েছে।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে বলা হয়েছে, রাজ্যগুলোর প্রদান করা স্বাস্থ্যকর্মীর সংখ্যা ও ফ্রন্টলাইনার্সদের নিরিখে রাজ্যগুলোকে বিনামূল্যে সেই ভ্যাকসিন পাঠানো শুরু হবে।

বিজেপি বলছে, এর জন্য কোনো অর্থ ব্যয় করতে হচ্ছে না। তবে রাজ্যগুলোর কাজ হলো, ভ্যাকসিন নির্দিষ্ট কেন্দ্রে পৌঁছে দেওয়া এবং কর্মসূচি এগিয়ে নিতে সহায়তা করা।

দ্বিতীয় দফায় যে ২৭ কোটি নাগরিককে ভ্যাকসিন দেওয়া হবে তার পুরো খরচও কেন্দ্রীয় সরকার বহন করবে বলে জানিয়েছে বিজেপি।