চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

বিধিনিষেধে বন্ধ নয়, খোলা থাকবে দোকানপাট-শপিংমল

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে চলমান বিধিনিষেধ আগামী ২৩ মে পর্যন্ত বাড়িয়েছে সরকার। তবে এ সময় দোকানপাট ও শপিংমল বিধিনিষেধের আওতামুক্ত থাকবে। ফলে দোকানপাট ও শপিংমল খোলা রাখা যাবে।

জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী এ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতি সভাপতি মো. হেলাল উদ্দিন।

বিজ্ঞাপন

সোমবার চ্যানেল আই অনলাইনকে হেলাল উদ্দিন এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, আমি জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে গত রাতে মোবাইল ফোনে কথা বলেছিলাম। তিনি (প্রতিমন্ত্রী) জানিয়েছেন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে দোকানপাট ও মার্কেট খোলা যাবে।

হেলাল উদ্দিন আরও বলেন, অধিকাংশ বিপণিবিতানে এখনো ঈদের ছুটি চলছে। ছুটি শেষ হলে যে যার মতো করে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খুলতে পারবে। তবে কঠোরভাবে স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে সবাইকে।

সরকারের বর্ধিত বিধিনিষেধ অনুযায়ী ২৩ মে পর্যন্ত দোকানপাট বন্ধ থাকবে এমন তথ্য গতকাল আপনি গণমাধ্যমকে জানিয়েছিলেন, কিন্তু আজ বলছেন খোলা থাকবে। তাহলে বিষয়টি নিয়ে দ্বিধাদ্বন্দ্ব তৈরি হয়েছে না? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এখানে কিছুটা ভুল বুঝাবুঝি হয়েছে। তবে এখন স্পষ্ট করা হয়েছে যে দোকানপাট ও শপিংমল খোলা থাকবে।

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ গতকাল রোববার করোনার সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে গণপরিবহনসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে চলমান বিধিনিষেধের মেয়াদ আরও এক সপ্তাহ অর্থাৎ ২৩ মে পর্যন্ত বাড়িয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করেছিল। এই সময়ে চলমান বিধিনিষেধের শর্তগুলো বহাল থাকবে। এ জন্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটির মেয়াদও আরেক দফা বাড়ানো হয়।

এদিকে গতকালের প্রজ্ঞাপনে স্পষ্ট করে কিছু বলা না থাকায় দোকানপাট ও বিপণিবিতান খোলা থাকবে কি না, সেটি নিয়ে অনেক ব্যবসায়ীর মধ্যে বিভ্রান্তি দেখা দেয়।

নতুন নির্দেশনায় বলা হয়, চলমান বিধিনিষেধের সময় সরকারের রাজস্ব আদায়ের সঙ্গে সম্পৃক্ত সব দপ্তর, জরুরি পরিষেবা আওতাভুক্ত থাকবে এবং খাবার হোটেল ও রেস্তোরাঁ কেবল খাবার বিক্রয় ও সরবরাহ করতে পারবে।

বিজ্ঞাপন