চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

বিদেশ ফেরত ৫০ ভাগ রোগী দেশি চিকিৎসকদের শরণাপন্ন

ঘাতক ব্যাধি ক্যান্সার নিরাময় এখন দেশেই সম্ভব। আন্তজার্তিক গাইডলাইন মেনে উন্নত প্রযুক্তির চিকিৎসায় আক্রান্তরা ঘাতক ব্যাধি ক্যান্সারকে জয় করে ফিরছেন স্বাভাবিক জীবনে।

বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা বলছেন, ক্যান্সার আক্রান্ত অনেকটা মোহে পড়েই বিদেশে পাড়ি দেয়াদের পঞ্চাশ শতাংশ রোগীই দেশীয় চিকিৎসকদের কাছেই আবার শরণাপন্ন হচ্ছেন।

টাঙ্গাইলের পারু বালা স্তন ক্যান্তারে আক্রান্ত হয়ে জীবনের অর্থই ভুলতে বসেছিলেন। কেমোথেরাপির তীব্র যন্ত্রণায় হারিয়ে ছিলেন জীবনের সব উদ্যোম। কেমোর পাশ্ব প্রতিক্রিয়াই শরীরের অসঙ্গীতে ভেঙ্গে পড়েছিলেন। গত এক বছরে চিকিৎসার পর তিনিই আবার ফিরে পেয়েছেন জীবনের গতি।

ক্যান্সার জয়ী পারু ক্যান্সারের সঙ্গে জয়ের সেই কথা বললেন, কেমোথেরাপি দেওয়ার পর চুল পড়েগিলো। এখন একটু সুস্থ আছি। আর আগের চেয়ে অনেক ভালো আছি। একই ভাবে ষাট ঊর্ধ্ব আব্দুস সাত্তার ইউরিনারীর ব্লাডারের ক্যান্সার জয় করে নতুন জীবনে ফিরেছেন।

ক্যান্সার জয়ের পর উদ্যোমী আব্দুস সাত্তার বাইপাস করেছেন। যদিও ব্লাড পেসার ডায়াবেটিস নিয়েও জীবনের স্বাভাবিক ছন্দ ধরে রেখেছেন ক্যান্সার জয়ী আব্দুস সাত্তার।

Advertisement

চিকিৎসকরা বলছেন, সার্জারি, কেমোথেরাপি এবং রেডিয়েশন থেরাপি এই সম্বনিত ফর্মুলায় আন্তজার্তিক গাইড লাইনেই ক্যান্সার চিকিৎসা হচ্ছে। ফলে দেশেই এখন উন্নত চিকিৎসা সম্ভব।

জাতীয় ক্যান্সার গবেষণা ইন্সটিটিউট ও হাসপাতালের পরিচালক অধ্যাপক ডা. মোয়াররফ হোসেন বলছেন, মানুষের দৃষ্টি ভঙ্গি বদল হয়েছে। ইন্টারনেট সজহলভ্য হওয়াতে দেশে-বিদেশে ক্যান্সার চিকিৎসা পদ্ধতি তুলনা করার সুযোগ হওয়াতে ক্যান্সার রোগীরা বিদেশে নয় দেশ মুখী হয়েছেন।

তিনি বলেন, ক্যান্সার চিকিৎসা একটি ফর্মুলার মতো। বাংলাদেশে ফর্মুলা যেমন দুয়ে দুয়ে চার হয় সেখানে ভারতেও যা সিঙ্গাপুরে তা এবং আমেরিকায়ও চার হবে। সুতরাং একটি ফর্মুলা কেনার জন্য বিদেশী যাওয়া কোনো দরকার আছে বলে আমার মনে হয় না।

ডা. মোয়াররফ হোসেন আরো বলেন, আমাদের ক্যান্সারের মাত্রা যেনো তুলনামূলক কম হয় সেই ব্যাপারে চিকিৎসকরা কাজ করে যাচ্ছে। সীমিত সম্পদের এ দেশে সিগারেটের মাত্রা কমিয়ে দিলে দেখবেন ফুসফুসে ক্যান্সার একেবারে কমে যাবে।

ঘাতক ব্যাধি ক্যান্সার জয় করতে প্রতিরোধ ব্যবস্থা জরুরী। এর জন্য জেলা পর্যায়ে হাসপাতালে ক্যান্সার চিকিৎসা চালু, ক্যান্সারের ওষুধ সহজ লভ্য করা এবং তামাক, জর্দা এখন নিয়ন্ত্রণ জরুরী।