চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

বিএনপি-জামায়াতের নির্যাতনে দেশ ত্যাগকারী কেউ আসতে চাইলে ফিরিয়ে নেব: কাদের

কনস্ট্রাকশন ওয়ার্কে তো ধুলাবালি উড়বেই, অর্থমন্ত্রীর সড়কের বেহাল দশা নিয়ে মন্তব্যের জবাব

২০০১ সালে বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের আমলে কেউ যদি নির্যতিত হয়ে দেশত্যাগ করে থাকেন, আর এখন যদি সে দেশে ফিরে আসতে চাই; তাহলে তাকে ফিরিয়ে নেওয়া হবে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। 

সোমবার সচিবালয়ের সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রণালয় সভাকক্ষে আয়োজিত সমসাময়িক রাজনৈতিক ইস্যুতে এক সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন: তখন কিছু কিছু লোক যাওয়া খুব স্বাভাবিক। সে পরিস্থিতিতে যেতে পারে, তখন আমরা ছিলাম বিরোধী দল; আমরা তাদের প্রতি সহানুভূতিশীল ছিলাম। তখন আমরা অনেক জায়গায় লঙ্গরখানা করেছি। গোপালগঞ্জের কোটালি পাড়াটা মোটামুটি একটা সেভ জোন, সেটা একেবারেই আওয়ামী লীগ অধ্যুষিত এলাকা। সেখানে আমরা লঙ্গরখানা খুলেছি, ঢাকাতেও আমরা অনেককে আশ্রয় দেওয়ার চেষ্টা করেছি। তখন ভয়ভীতির কারণে অনেকে চলে যেতে পারেন।

ওই সময়ে চলে যাওয়া কেউ যদি ফিরে আসতে চায় তাহলে তাদের ফিরিয়ে নেওয়া হবে মন্তব্য করেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক।

বিজ্ঞাপন

তবে আওয়ামী লীগের এ সময়ে নির্যাতিত হয়ে কেউ ভারতে আশ্রয় নেয়নি বলে দাবি করেন ক্ষমতাসীন দলে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ সাংগঠনিক এ নেতা।

এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন: শেখ হাসিনা সরকারের আমলে মাইনরিটি নির্যাতনের মতো কোন ঘটনা ঘটেনি। বিচ্ছিন্ন-বিক্ষিপ্ত ভাবে অঞ্চল ভিত্তিক কিছু কিছু ঘটনা ঘটেছে। সেটা দেশ ত্যাগ করে ভারতে আশ্রয় নেওয়ার মতো কোন কারণ সৃষ্টি করেনি। বিচ্ছিন্ন ঘটনা গুলোর সঙ্গে যারা জড়িত ছিলো তাদের আইনের আওতায় আনা হয়েছে। কাজেই এগুলো তাদের দেশ ত্যাগের কোন কারণ সৃষ্টি করেনি বলে আমরা মনে করি।

গত বৃহস্পতিবার অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল সড়কের বেহাল দশা নিয়ে যে মন্তব্য করেছেন তার জবাবে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেন: আমি উনার সঙ্গে কথা বলেছি, বিষয়টা ভুল বোঝাবুঝির। ওই রাস্তাটা এখন ফোর লেন হচ্ছে। চার লেনে যে রাস্তাটা হবে, কনস্ট্রাকশন ওয়ার্কে তো ধুলাবালি উড়বেই।এটা হলো বাস্তবতা। তিনি হয়তো বাড়ি যেতে বারবার বিরক্ত হচ্ছেন। কিন্তু ঢাকা থেকে কুমিল্লা পর্যন্ত তিনি ভালোভাবেই যাচ্ছেন।

শেরেবাংলা নগরের এনইসি সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত ‘মহাসড়কের লাইফ টাইম : চ্যালেঞ্জ ও করণীয়’ শীর্ষক আয়োজিত সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল মহাসড়কের সমালোচনা করে  বলেছিলেন:  প্রতিবছর বাজেটে আপনাদের ২৫ হাজার কোটি টাকা দেওয়া হচ্ছে। এগুলো কি কার্যকরভাবে ব্যবহার হচ্ছে? আপনারা মনের আনন্দে প্রকল্প একনেকে নিয়ে আসেন! আমরা অর্থ দেওয়া বন্ধ করে দেব।

বিজ্ঞাপন