চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

বিএনপির আইন বিষয়ক সম্পাদকের চেম্বার ভাঙচুর

সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি ভবনে বিএনপির আইন বিষয়ক সম্পাদক ব্যারিস্টার কায়সার কামালের চেম্বার ভাঙচুর করা হয়েছে।

ওই ভবনের নিচতলায় থাকা চেম্বারটি (১১০ নম্বর কক্ষ) বুধবার বিকেলে ভাঙচুর করা হয়। তবে এসময় ব্যারিস্টার কায়সার কামাল চেম্বারে ছিলেন না।

বিজ্ঞাপন

বিএনপিপন্থী আইনজীবীদের সংগঠন জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের কেন্দ্রীয় আহবায়ক কমিটি গঠনকে কেন্দ্র করে এই ভাঙচুরের ঘটনা বলে চ্যানেল আই অনলাইনকে জানান নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা।

এর আগে গত ৩ অক্টোবর সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি ও বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান খন্দকার মাহবুব হোসেনকে আহবায়ক এবং সাবেক ছাত্রনেতা ও আইনজীবী ফজলুর রহমানকে সদস্য সচিব করে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের ১৭৯ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি ঘোষনা করা হয়।

বিজ্ঞাপন

এই কমিটি ঘোষণার পর থেকেই পদবঞ্চিতরা সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি ভবনে বিক্ষোভ মিছিল করে যাচ্ছেন। আজ সোমবার ব্যারিস্টার কায়সার কামালের চেম্বার ভাঙচুরের আগেও পদবঞ্চিতদের মিছিল হয়। তবে এই মিছিল থেকে কারাবন্দী খালেদা জিয়ার মুক্তি চাওয়া হয়।

অন্যদিকে আইনজীবী সমিতি ভবনে ঘটা এই ভাঙচুরের বিষয়ে জানতে চাইলে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি এ এম আমিন উদ্দিন চ্যানেল আই অনলাইনকে বলেন: আমি আজ কোর্টে ছিলাম না।  তবে এরই মধ্যে ঘটনাটি শুনেছি। এ বিষয়ে বিস্তারিত জেনে পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে। কারণ, এটা ভাঙচুরের জায়গা নয়।

সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সম্পাদক ব্যারিস্টার এ এম মাহবুব উদ্দিন খোকন সাংবাদিকদের বলেন: আমি ভাঙচুরের বিষয়ে কিছু জানি না। আমি তো এমন কিছু শুনিনি।

তবে বঞ্চিত বিএনপিপন্থী আইনজীবীদের চলমান বিক্ষোভ ও আজকের ভাঙচুরের বিষয়ে আইনজীবী ফোরামের কেন্দ্রীয় কমিটির আহবায়ক খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেন: ভাঙচুরের ঘটনাটি কারও ব্যক্তিগত দ্বন্দ্বের কারণে কিনা, নাকি অন্য কোনো কারণে সেটা জানতে হবে। কারও বিরুদ্ধে যদি শৃঙ্খলাভঙ্গের অভিযোগ প্রমাণিত হয় তাহলে দলীয়ভাবে যথাযথ পদক্ষেপ নেওয়া হবে। আর যোগ্য কেউ পদবঞ্চিত হয়ে থাকলে তাদের হতাশ হওয়ার কিছু নেই। কমিটিতে থাকার সুযোগ শেষ হয়ে যায়নি।

Bellow Post-Green View