চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

বাবা-মায়ের দোহাই, আমাকে জীবনমুখী শিল্পী বলবেন না: কবীর সুমন

বাংলাদেশের মিডিয়াকর্মীদের প্রতি পশ্চিমবঙ্গের গুণী শিল্পী কবীর সুমনের অনুরোধ

কবীর সুমন গতকাল শনিবার সকালে সোশ্যাল মিডিয়া ফেসবুকের ব্যক্তিগত অ্যাকাউন্ট থেকে একটি ভিডিও শেয়ার করেছেন। ভিডিওতে তিনি বাংলাদেশের মিডিয়াকর্মীদের প্রতি একটি অনুরোধ জানিয়েছেন।

ভিডিওর ক্যাপশনে কবীর সুমন লিখেছেন, ‘বাঙালি মিডিয়াকর্মীদের প্রতি সনির্বন্ধ অনুরোধ – আমার বাবামা, আমার গুরুদের দোহাই, বাংলা ভাষা বাংলা গানের দোহাই আমাকে জীবনমুখী গায়ক বলবেন না। বিশেষ করে বাংলাদেশের মিডিয়াকর্মীদের প্রতি এই সনির্বন্ধ অনুরোধ। তাঁরা প্রায় সব সময় আমার নামের আগে এই কথা প্রয়োগ করে থাকেন।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

মহান শিল্পী শ্রীযুক্ত নচিকেতা চক্রবর্তীর গানের ক্যাসেটে ঐ কথাটি ছিল, থাকত : জীবনমুখী বাংলা গান বা গান। আমার গানের কোনও এলবামে ঐ কথাটি ছিল না। থাকে না। দয়া করে আমার নামের আগে ঐ কথাগুলি লিখবেন না। দয়া করে।’

বিজ্ঞাপন

ভিডিওতে পশ্চিমবঙ্গের এই জনপ্রিয় শিল্পী বলেছেন, “জীবনমুখী বিষয়টি প্রথম জানতে পারি ১৯৯৩ সালে নচিকেতা মহোদয়ের প্রথম অ্যালবাম ‘এই বেশ ভালো আছি’-তে। তার আগে নয়। তোমাকে চাই তার যথেষ্ট আছে। বা ‘বসে আঁকো’, ‘জাতিস্মর’ কোনো অ্যালবামে তো জীবনমুখী ছিল না। কিন্তু বাংলাদেশের মিডিয়া দেখেছি কী করে জানি তারা আমাকে জীবন মুখী গায়ক বলেন।”

কবীর সুমন বলেন, ‘জীবনমুখী গায়ক আমায় বলবেন না। আমি জীবনমুখী না। আমার গানে কোনো দিন জীবনমুখী কথাটি ছিল না। কোনো অ্যালবামে ছাপা হয়নি। কোনো নামেও লিখিনি। অনুগ্রহ করে এটা লিখবেন না।’

১৯৯২ সালে গানের অ্যালবাম ‘তোমাকে চাই’ প্রকাশের পর জনপ্রিয় হয়ে ওঠেন কবীর সুমন। আধুনিক বাংলা গানের জনপ্রিয় এ শিল্পী বাংলাদেশ ও ভারতের পশ্চিমবঙ্গে সমান জনপ্রিয়।