চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

বান্দরবানে পানিতে ডুবে পর্যটক নিখোঁজ

বান্দরবানের থানচিতে দর্শনীয় স্থান নাফাকুম খালে পানিতে ডুবে এক পর্যটক নিখোঁজ হয়েছেন।  শনিবার এ ঘটনা ঘটে।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, থানচি উপজেলার রেমাক্রি ইউনিয়নের দর্শনীয় পর্যটন স্পট নাফাকুম ঝর্না ভ্রমণে যাওয়ার পথে খালের পানিতে স্রোতে ভেসে পানিতে ডুবে এক পর্যটক নিখোঁজ রয়েছেন। নিখোঁজ ব্যক্তি কাজী জাকারুল ইসলাম কানন (৩৫)। সে ঢাকার উত্তরার বাসিন্দা কাজী জহিরুল ইসলামে পুত্র ।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

স্থানীয় পর্যটক গাইড শ্রাবণ ত্রিপুরা বলেন, প্রশাসনের নির্দেশনা মেনে থানচি থানা ও বিজিবি অফিসে তালিকা জমা দিয়ে তার নেতৃত্বে শুক্রবার বেলা আড়াইটা ঢাকা থেকে ভ্রমণে আসা ১৩ জনের একটি পর্যটক গ্রুপকে নিয়ে নাফাকুম ঝর্না ভ্রমণে রওনা হন তারা। রেমাক্রিতে রাত্রি যাপনের সকালে রেমাক্রি বাজারে নাস্তা খেয়ে নাফাঁকুমে উদ্দেশে রওনা দেন তারা । নাফাকুম পৌঁছার আগেই সাইগংয়ান নামক স্থানে পৌছলে খাল পারাপার করার সময় পানিতে ডুবে যান। পর্যটক স্পটে ভ্রমণ ও সফর সঙ্গী ও স্থানীয়রা অনেক খোঁজাখুঁজি পরও তাঁকে পাওয়া যায়নি। বিষয়টি রেমাক্রি বাজার বিজিবি ক্যাম্পের জানালে তৎক্ষনিকভাবে বিজিবি সদস্যরা নিখোঁজ ব্যক্তি উদ্ধারে জন্য ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

বিজ্ঞাপন

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে থানচি উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মোঃ আরিফুল হক মৃদুল জানান, পর্যটক নিখোঁজের খবর পেয়েছি। নিখোঁজ ব্যক্তিকে উদ্ধারের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে ।

এদিকে বান্দরবানের দর্শনীয় ঝর্নাগুলোও বর্ষায় খুবই ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠে। পাহাড়ে সৌন্দর্য ছড়ানো ঝর্নাগুলোতে পর্যটকদের সতর্কতা মূলক কোনো সতর্কীকরণ চিহ্ন, পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা, চলাচলের পথ, বিভিন্ন অবকাঠামো নির্মাণ না করায় প্রতিনিয়ত দুর্ঘটনা ঘটছে। বাড়ছে প্রাণহানির ঘটনাও।