চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

বাণিজ্যে বাংলাদেশের নারীরা অনেক এগিয়ে: বাণিজ্যমন্ত্রী

ব্যবসা-বাণিজ্যে সফলতায় বাংলাদেশের নারীরা অনেক এগিয়ে গেছেন বলে জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি।

তিনি বলেন, সরকার নারীদের দেশীয় এবং আর্ন্তজাতিক বাণিজ্য ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় সহযোগিতা দিয়ে যাচ্ছে। দেশের জনশক্তির প্রায় অর্ধেক নারী। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বর্তমান সরকার এ বিপুল নারী জনশক্তিকে উৎপাদনশীল কাজে লাগাতে সব ধরনের পদক্ষেপ নিয়েছে। ফলে অনেক নারী ব্যবসা-বাণিজ্য করে সফল হয়েছেন।

মঙ্গলবার আইটিসি জেনেভা অফিসের সাথে যুক্ত হয়ে বাংলাদেশ সময় গভীর রাতে জাতিসংঘ এবং ওয়াল্ড ট্রেড অর্গানাইজেশনের (ডব্লিউটিও) উদ্যোগে আয়োজিত ‘সি ট্রেড আউট লুক’ শীর্ষক ভার্চুয়াল হাই লেভেল পলিটিক্যাল ফোরাম ডিসকাসনে অংশ নিয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

বুধবার বাণিজ্য মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ওই ভার্চুয়াল ওই অনুষ্ঠানে অংশ নিয়ে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, স্মল অ্যান্ড মিডিয়াম অ্যান্টারপেনার্সের (এসএমই) মাধ্যমে উদ্যোক্তা নারীদের ঋণ ও প্রয়োজনীয় সহায়তা দেয়া হচ্ছে। ফলে বিশেষ করে কুটির শিল্পে নারীদের অগ্রযাত্রা চোখে পড়ার মতো। আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলায় নারী উদ্যোক্তাদের অগ্রাধিকার দেয়া হচ্ছে। প্রয়োজনে বিভিন্ন সহযোগিতা দেয়া হচ্ছে। এ কারণে বাংলাদেশে নারী উদ্যোক্তা উল্লেখযোগ্য হারে বেড়েছে। বাণিজ্যক্ষেত্রে মহিলাদের অংশগ্রহণও রেড়েছে।

কুটির শিল্পে বাংলাদেশের নারীরা বেশ সফলতা পেয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ঢাকাসহ জেলায়গুলোতে মহিলা চেম্বার অব কমার্স গড়ে উঠেছে। শিল্প খাতের প্রায় ২০ হাজার কোটি টাকার ঋণের মধ্যে ২০ শতাংশ ঋণ এসএমইর মাধ্যমে মহিলা উদ্যোক্তাদের দেয়া হচ্ছে। বাংলাদেশ তৈরি পোশাক রপ্তানিতে পৃথিবীর মধ্যে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে। এ খাতে প্রায় ৪৫ লাখ শ্রমিক কাজ করছে, যার প্রায় ৮০ ভাগই নারী।

টিপু মুনশি বলেন, বর্তমানে করোনাভাইরাসের সংকটময় পরিস্থিতি মোকাবিলায় পোশাক খাতের নারীকর্মীদের সুরক্ষা প্রদানের জন্য বেতন খাতে সরকার ৫ হাজার কোটি টাকা নামমাত্র সুদে সরবরাহ করেছে। গৃহীত ঋণের কিস্তি প্রদান স্থগিত করা হয়েছে। সরকারের নানামুখী পদক্ষেপে বিশ্বমন্দা অর্থনৈতিক পরিস্থিতিতেও বাংলাদেশের অর্থনীতি সচল রয়েছে। পরিস্থিতি মোকাবিলায় বাংলাদেশ সরকার উতোমধ্যে জরুরি, স্বল্প মেয়াদি এবং দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে। পর্যায়ক্রমে তা বাস্তবায়ন করা হচ্ছে।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, জাতিসংঘ ২০১৬ সালে নারীর ক্ষতায়নে বিশেষ সফলতার জন্য বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ‘প্লানেট ৫০-৫০ চ্যাম্পিয়ন’ পদকে ভূষিত করে। কর্মক্ষেত্রে নারী-পুরুষের ব্যবধান কমানোর সফলতায় উইম্যান ইন পার্লামেন্ট (ডব্লিউআইপি) ২০১৪ সালে ‘ডব্লিউআইপি গ্লোবাল ফোরাম অ্যাওয়ার্ড’ এবং নারী শিক্ষায় সফলতার জন্য তিনি ‘ট্রি অব পিস’ অ্যাওয়ার্ড অর্জন করে।

শেয়ার করুন: