চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

বাজেট উত্থাপন ছাড়াই ঢাবি সিনেট অধিবেশন মুলতবি, ছিলেন না অনেক গুরুত্বপূর্ণ সদস্য

করোনাভাইরাসে উদ্ভূত পরিস্থিতির মধ্যে বাজেট উত্থাপন ছাড়াই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেট অধিবেশন অনুষ্ঠিত হয়েছে, যেখানে অংশ নেননি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক কবি মুহাম্মদ সামাদ, প্রো-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক নাসরীন আহমাদ, শিক্ষক সমিতির সভাপতি মাকসুদ কামাল এবং কোষাধ্যক্ষ কামাল উদ্দীনসহ গুরুত্বপূর্ণ অনেক সদস্য।

তাদের অভিযোগ, পছন্দের ব্যক্তিকে সিন্ডিকেটে মনোনয়ন দেওয়ার জন্যই বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য তড়িঘড়ি করে সিনেট অধিবেশন ডাকেন।

বিজ্ঞাপন

অধিবেশনে অংশ না নেওয়া কয়েকজন সদস্য বলেছেন, এটি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাসে একটি কলঙ্ক। সাধারণত সিনেট অধিবেশন অনুষ্ঠিত হয় জুন মাসের শেষ দিকে। শুধুমাত্র পছন্দের এক শিক্ষককে সিন্ডিকেটে মনোনয়ন দেওয়ার জন্যই উপাচার্য তড়িঘড়ি করে সিনেট অধিবেশন ডেকেছেন।

বিজ্ঞাপন

তারা বলছেন, এই সিনেটের মেয়াদ চলতি মাসের ১৬ তারিখ শেষ হয়ে যাবে। এরপর অধিবেশন হলে পছন্দের ব্যক্তিকে মনোনয়ন দেওয়া যেত না। তাছাড়াও সিনেট অধিবেশনের মূল কাজ বাজেট উত্থাপন করা। যেহেতু এই অধিবেশনে বাজেট ঘোষণা করা হবে না, তাই তারা অংশ নেননি। পাশাপাশি করোনাভাইরাসে উদ্ভূত পরিস্থিতিতে নিজেদের স্বাস্থ্যগত সতর্কতার বিষয়টি বিবেচনা করেও কেউ কেউ যাননি বলে জানান।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে উপাচার্য সেটি এড়িয়ে যান।

তবে রোববার অনুষ্ঠিত সিনেটের বার্ষিক অধিবেশনে বিশ্ববিদ্যালয়ের সার্বিক উন্নয়নে ৫ বছর মেয়াদী ‘স্ট্র্যাটেজিক প্ল্যান’ গ্রহণ ও ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব রিসার্চ ইনস্টিটিউট ফর পিস এন্ড লিবার্টি’-এর প্রস্তাবিত স্ট্যাটিউট অনুসমর্থিত হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

এছাড়াও আগামী এক বছরের জন্য ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) সিন্ডিকেটে সর্বসম্মতিক্রমে নতুন তিনজন সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন।

নির্বাচিত নতুন তিন সিন্ডিকেট সদস্য হলেন, রেজিস্টার্ড গ্র্যাজুয়েট ক্যাটাগরিতে এস. এম. বাহালুল মজনুন, শিক্ষাবিদ হিসেবে অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াতুল ইসলাম এবং বিশিষ্ট নাগরিক হিসেবে বাংলা একাডেমির সাবেক মহাপরিচালক ও ইসলামিক বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু চেয়ার অধ্যাপক এ কে এম শামসুজ্জামান খান।

এছাড়া, ফাইন্যান্স কমিটিতে সোনালী ব্যাংক লিমিটেড-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক জনাব আতাউর রহমান প্রধানকে মনোনয়ন দেওয়া হয়।

বার্ষিক অধিবেশনে সংসদ সদস্য, ডাকসু’র প্রতিনিধিসহ সকল ক্যাটাগরি থেকে ৬৩ জন সিনেট সদস্য অংশগ্রহণ করেন।

অধিবেশনে উপাচার্য বলেন, বাংলাদেশের সকল দুর্যোগ ও সংকট মোকাবেলায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অতীতে যেভাবে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে, কোভিড-১৯ মোকাবেলায়ও সেভাবে কাজ করে যাচ্ছে। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে বিশ্ববিদ্যালয় খোলার পর যেন কম সংখ্যক ক্লাশ নিয়ে পরীক্ষা নেয়া যায় সেজন্য অনির্ধারিত ছুটিতে অনলাইনসহ বিভিন্ন সম্ভাব্য উপায়ে শিক্ষার্থীদের শিক্ষা কার্যক্রমে সম্পৃক্ত ও সক্রিয় রাখার ব্যাপারে সকল বিভাগ ও ইনস্টিটিউটের সহকর্মীদের অনুরোধ করেন তিনি৷

সিনেটের এই বার্ষিক অধিবেশনে ২০২০-২০২১ অর্থ বছরের বাজেট উপস্থাপন করা যায়নি বিধায় সেটি উপস্থাপন ও বিবেচনার জন্য সিনেটের এই বার্ষিক সভা আগামী ২৩ জুলাই ২০২০ বৃহস্পতিবার বিকেল ৩.৩০টা পর্যন্ত মুলতবি করা হয়।