চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

বাংলাদেশ-উইন্ডিজ: ইতিহাস কী বলছে?

দুর্দান্ত শুরুর পর পথ হারিয়ে ফেলা। সেইসঙ্গে পয়েন্ট ভাগাভাগির হতাশা। বিশ্বকাপের দ্বাদশ আসরে এখন পর্যন্ত একবিন্দুতে রয়েছে বাংলাদেশ এবং ওয়েস্ট ইন্ডিজ। সোমবার গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে মুখোমুখি হচ্ছে দুদল। সেমিফাইনালের স্বপ্ন টিকিয়ে রাখতে দুদলের জন্যই অবশ্যই জয়ের ম্যাচ এটি।

বাংলাদেশ সময় বেলা ৩টা ৩০ মিনিটে টন্টনের দ্য কপার অ্যাসোসিয়েট কাউন্টি গ্রাউন্ডে শুরু হবে ম্যাচ।

বিজ্ঞাপন

সাউথ আফ্রিকাকে হারিয়ে বিশ্বকাপের দারুণ পথচলার ইঙ্গিত দেয় বাংলাদেশ। পাকিস্তানকে গুঁড়িয়ে শুরু করে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। এরপরই খেই হারিয়ে ফেলে দল দুটি। নিজেদের পরের দুই ম্যাচে বাংলাদেশ হেরেছে নিউজিল্যান্ড ও ইংল্যান্ডের বিপক্ষে। আর উইন্ডিজ হেরেছে অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে।

পরে বৃষ্টি অভিশাপ হয়ে আসে বাংলাদেশ এবং ওয়েস্ট ইন্ডিজের জন্য। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে জয়ের ছক কষেছিল টাইগাররা। বৃষ্টির কারণে টসই মঠে গড়াতে পারেনি। অন্যদিকে সাউথ আফ্রিকার বিপক্ষে পয়েন্ট ভাগাভাগির হতাশায় পুড়তে হয় ক্যারিবিয়ানদেরও।

হতাশা কাটিয়ে ওঠার লক্ষ্যে সোমবার জয়ের জন্য মরিয়া হয়ে মাঠে নামবে বাংলাদেশ এবং উইন্ডিজ। পাওয়ার হিটিংয়ে ক্যারিবিয়ানরা এগিয়ে থাকলেও সাম্প্রতিক পারফরম্যান্স অনুপ্রাণিত করবে টাইগারদের। বিশ্বকাপের আগে আয়ারল্যান্ডের মাটিতে তিন জাতি সিরিজে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পথে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে টানা তিনবার হারিয়েছে মাশরাফীর দল।

মুখোমুখি লড়াইয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজ বেশ এগিয়ে থাকলেও সাম্প্রতিক পারফরম্যান্স কথা বলছে বাংলাদেশের হয়েই। সর্বশেষ ৯ ম্যাচের ৭টিতেই ক্যারিবিয়ানদের পরাজয়ের স্বাদ দিয়েছে টাইগাররা। গত বছরের জুলাইয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজের মাটিতে তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজ জয়ের সুখস্মৃতি তো রয়েছেই। পরে ঘরের মাঠে সিরিজে হারানোর স্মৃতি আছে মাশরাফীদের।

বিশ্বকাপের ইতিহাস অবশ্য ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে কথা বলছে। ১৯৯৯ বিশ্বকাপে প্রথমবারের মতো মুখোমুখি, যেখানে জয় পায় ক্যারিবীয়রা। এরপর ২০০৭ ও ২০১১ বিশ্বকাপেও বাংলাদেশকে হারায় উইন্ডিজ। ফলে বিশ্বকাপের মঞ্চে ৩-০ ব্যবধানের লিড নিয়ে মাঠে নামছে বিশ্বকাপের প্রথম দুই আসরের চ্যাম্পিয়নরা।

বিজ্ঞাপন

ইংল্যান্ডের বিপক্ষে এলোমেলো বোলিং বাংলাদেশকে দুশ্চিন্তায় ফেলছে। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিগ হিটারদের বিপক্ষে যদি মাশরাফী-মোস্তাফিজরা ছন্দ খুঁজে না পান, তবে টাইগার ব্যাটসম্যানদের জন্য কাজটা কঠিনই হয়ে যাবে।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বোলাররা বেশ ফর্মে থাকলেও ব্যাটিং ভাবাচ্ছে ক্যারিবিয়ানদের। নিউজিল্যান্ড এবং ইংল্যান্ডের বিপক্ষে উইন্ডিজের ব্যাটসম্যানদের দুর্বলতা ফুটে উঠেছে। টি-টুয়েন্টি এবং ওয়ানডেকে এখনো আলাদা করতে পারছেন না আন্দ্রে রাসেল-এভিন লুইসরা। সেই ধারা অব্যাহত থাকলে বাংলাদেশের বিপক্ষে কঠিন পরীক্ষাই দিতে হবে গেইল-হেটমায়ারদের।

নজর থাকবে যাদের উপর
সাকিব আল হাসান (বাংলাদেশ): ৭৫, ৬৪ এবং ১২১- বিশ্বকাপের দ্বাদশ আসরের প্রথম তিন ইনিংসে সাকিবের রান। স্বপ্নের মতো সময় কাটছে টাইগার অলরাউন্ডারের। দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ের পাশাপাশি বল হাতেও পাচ্ছেন সফলতা। সঙ্গত কারণেই তাকে বিশ্বকাপের অন্যতম সেরা খেলোয়াড় হিসেবে ভাবা হচ্ছে। সাকিবের আগুন ফর্ম একইসঙ্গে বাংলাদেশকে তিন নম্বর পজিশনের সমস্যা থেকেও দিয়েছে মুক্তি। বল হাতে তো তিনি সেরাই! ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সাকিবই হতে পারেন বাংলাদেশের তুরুপের তাস।

জেসন হোল্ডার (উইন্ডিজ): অনেকটা নীরব ঘাতকের মতো জেসন হোল্ডার। টেলএন্ডে হঠাৎ করে ঝড় তুলে ম্যাচের মোড় ঘুরিয়ে দিতে পারেন ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলনায়ক। অন্যদিকে বাউন্স, ইয়র্কার ও শর্ট বলে ব্যাটসম্যানদের নাকাল করে ছাড়েন। বাংলাদেশের বিপক্ষে হুমকি হয়ে উঠতে পারেন তিনি।

টিম নিউজ
বাংলাদেশ: ইংল্যান্ড ম্যাচের একাদশে পরিবর্তন আনতে যাচ্ছে বাংলাদেশ। রুবেল হোসেনকে ফেরানোর সম্ভাবনা আছে। লিটন দাসকে নিয়েও ভাবা হচ্ছে। সেক্ষেত্রে কপাল পুড়তে যাচ্ছে মোহাম্মদ মিঠুনের। তবে মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন ছন্দে থাকায় রুবেল একাদশে ফিরলে কাকে বসানো হবে সেটি নিয়ে ভাবতে হচ্ছে টিম ম্যানেজমেন্টকে।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ: ইংল্যান্ড ম্যাচে অ্যাশলে নার্শকে বসিয়ে অল-পেস অ্যাটাক নিয়ে মাঠে নেমেছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ। বাংলাদেশের বিপক্ষেও একই কৌশল নিয়ে মাঠে নামতে পারে ক্যারিবিয়ানরা। তবে অফ-ফর্মে থাকা এভিন লুইসকে বেঞ্চে বসিয়ে ড্যারেন ব্রাভোকে নামাতে পারে জেসন হোল্ডারের দল।

সম্ভাব্য একাদশ
বাংলাদেশ: তামিম ইকবাল, সৌম্য সরকার, সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম, লিটন দাস, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, মোসাদ্দেক হোসেন, মেহেদী হাসান মিরাজ, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন, মাশরাফী বিন মোর্ত্তজা ও মোস্তাফিজুর রহমান/রুবেল হোসেন।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ: ক্রিস গেইল, শাই হোপ, ড্যারেন ব্রাভো, এভিন লুইস, নিকোলাস পুরান, সিমরন হেটমায়ার, জেসন হোল্ডার, আন্দ্রে রাসেল, কার্লোস ব্র্যাথওয়েট, শেলডন কটরেল, ওসানে থমাস ও শ্যানন গ্যাব্রিয়েল।

Bellow Post-Green View