চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

বাংলাদেশের সিনেমা নিয়ে গর্ব করার দিন আজ

বিশ্বের সবচেয়ে দাপুটে চলচ্চিত্র উৎসব বলা হয় ‘কান আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব’কে। পৃথিবীর নামিদামি নির্মাতারা ছবি নিয়ে এই উৎসবের জন্য অপেক্ষায় থাকেন। আর এই মর্যাদাপূর্ণ উৎসবে প্রথমবার অফিশিয়াল সিলেকশনে স্থান করে নিলো বাংলাদেশের সিনেমা ‘রেহানা মরিয়ম নূর’।

কান চলচ্চিত্র উৎসবের অফিশিয়াল ওয়েব সাইটে বিষয়টি জানানো হয়।

৭৪তম কান চলচ্চিত্র উৎসবে অফিসিয়াল সিলেকশন এর ‘আনসার্টেন রিগার্ড’ (ভিন্ন দৃষ্টিকোণ) বিভাগে নির্বাচিত হয়েছে ‘লাইভ ফ্রম ঢাকা’ খ্যাত নির্মাতা আবদুল্লাহ মোহাম্মাদ সাদ এর সিনেমা ‘রেহানা মরিয়ম নূর’।

বাংলাদেশের চলচ্চিত্রের ইতিহাসে প্রথমবারের মত সাদ’র চিত্রনাট্য ও পরিচালনায় এই ছবি কান অফিসিয়াল সিলেকশন এর জন্য আমন্ত্রণপত্র পেয়েছে। ছবির প্রধান চরিত্রে অভিনয় করেছেন, আজমেরী হক বাধঁন।

এমন সংবাদে ‘রেহানা মরিয়ম নূর’ এর সহ-প্রযোজক রাজিব মহাজন চ্যানেল আই অনলাইনকে বলেন, ‘আমরা গর্বিত। এটা আমাদের জন্য বিশাল অর্জন। এতোদূর যেতে পারছি, সেটা সম্ভব হয়েছে আমাদের টিমের কারণে। এমন আনন্দের খবরে সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা।’

শুধু ‘রেহানা মরিয়ম নূর’ এর টিম নয়, এমন খবরে গর্ব উচ্ছ্বাস করছেন দেশের মেধাবী নির্মাতারা, অভিনেতারাও। মোস্তফা সরয়ার ফারুকী থেকে শুরু করে অমিতাভ রেজা, আবু শাহেদ ইমন সহ প্রত্যেকেই এ অর্জনকে বাংলাদেশের সিনেমার জন্য গৌরবের দিন বলে উল্লেখ করছেন। অভিনন্দন জানাচ্ছেন ছবিটির সাথে সংশ্লিষ্ট সকলকে।

বিজ্ঞাপন

ছবির নির্মাতা আব্দুল্লাহ মোহাম্মদ সাদ

প্রাইভেট মেডিকেল কলেজের একজন শিক্ষক রেহানা মরিয়ম নূরকে কেন্দ্র করেই এই সিনেমার গল্প। যেখানে রেহানা একজন মা, মেয়ে, বোন ও শিক্ষক হিসেবে জটিল জীবনযাপন করে। এরমধ্যে এক সন্ধ্যায় কলেজ থেকে বেরোনোর সময় রেহানা একটি অপ্রত্যাশিত ঘটনার সাক্ষী হয়। এরপর থেকে সে এক ছাত্রীর পক্ষ হয়ে সহকর্মী এক শিক্ষকের বিরুদ্ধে সোচ্চার হয়ে ঘটনার প্রতিবাদ করতে শুরু করেন এবং ক্রমশ একরোখা হয়ে ওঠেন। কিন্তু একই সময়ে তার ৬ বছর বয়সী মেয়ের বিরুদ্ধে স্কুল থেকে রূঢ় আচরণের অভিযোগ করা হয়। এমন অবস্থায় অনড় রেহানা তথাকথিত নিয়মের বাইরে থেকে সেই ছাত্রী ও তার সন্তানের জন্য ন্যায় বিচারের খোঁজ করতে থাকেন।

পোটোকল ও মেট্রো ভিডিও’র ব্যানারে ছবিটি প্রযোজনা করেছেন সিঙ্গাপুরের প্রযোজক জেরেমী চুয়া, নির্বাহী প্রযোজক এহসানুল হক বাবু এবং সহ-প্রযোজনা করেছেন রাজীব মহাজন, আদনান হাবিব, সাঈদুল হক খন্দকার।

ছবিটির সিনেমাটোগ্রাফার তুহিন তমিজুল, প্রোডাকশন ডিজাইনার আলী আফজাল উজ্জল ও সাউন্ড ডিজাইনার শৈব তালুকদার। ছবিটি সহ-প্রযোজনা করেছে সেন্সমেকারস প্র্রডাকশন।

ছবিতে মূল চরিত্রে বাঁধন ছাড়াও আরো অভিনয় করেছেন আফিয়া জাহিন জাইমা, কাজী সামি হাসান, আফিয়া তাবাসসুম বর্ন, ইয়াছির আল হক, সাবেরী আলমসহ অনেকে।

ইতিমধ্যে ছবিটির ইন্টারন্যাশনাল সেলস্ এর জন্য জার্মান ভিত্তিক সেলস্ এন্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি ফিল্মস বুটিক চুক্তবদ্ধ হয়েছে। আগামী ৬ জুলাই থেকে ফ্রান্সের কান শহরে অনুষ্ঠিত হবে বিশ্বের প্রথম সারির আর্ন্তজাতিক এই চলচ্চিত্র উৎসব।

২০০২ সালের ৫৫তম কানস্ চলচ্চিত্র উৎসব এ প্যারালাল বিভাগের অংশ ডিরেক্টরস’ ফোর্টনাইট-এ নির্বাচিত হয়েছিল প্রয়াত চলচ্চিত্র নির্মাতা তারেক মাসুদ পরিচালিত ‘মাটির ময়না’ চলচ্চিত্রটি। কিন্তু প্রথমবারের মত অফিসিয়াল সিলেকশনে ‘রেহানা মরিয়ম নূর’ ছবিটি আমন্ত্রণ পাবার মাধ্যমে বাংলাদেশের চলচ্চিত্র ইতিহাসে নতুন মাত্রা যোগ করেছে।

বিজ্ঞাপন