চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

বছরের প্রথম দিনে স্টার সিনেপ্লেক্সে ‘মনস্টার হান্টার’

নতুন বছরের প্রথম দিনে স্টার সিনেপ্লেক্স দর্শকদের জন্য নিয়ে আসছে হলিউডের আলোচিত ছবি ‘মনস্টার হান্টার’

নতুন বছরের প্রথম দিনে স্টার সিনেপ্লেক্স দর্শকদের জন্য নিয়ে আসছে হলিউডের আলোচিত ছবি ‘মনস্টার হান্টার’। ‘রেসিডেন্ট এভিল’ ও ‘মর্টাল কমব্যাক্ট’ খ্যাত পরিচালক পল ডব্লিউ এস অ্যান্ডারসন এই ছবি পরিচালনা করেছেন।

হলিউডের পাশাপাশি চীন ও জার্মানির লগ্নি রয়েছে এ ছবিতে। জনপ্রিয় গেইম ক্যাপকম অবলম্বনে নির্মিত হয়েছে এই ছবির কাহিনি।

বিজ্ঞাপন

যুক্তরাষ্ট্রের এলিট মিলিটারি ফোর্সের ওয়ার্ম হোল ভ্রমণ ও মনস্টারের মুখোমুখি হওয়ার কাহিনি নিয়ে ক্যাপকমের এই ভিডিও গেম। মজার ব্যাপার হল ‘রেসিডেন্ট এভিল’ ছবির কাহিনিও তৈরি করা হয়েছিল কম্পিউটার গেইম থেকে। ছবিটি এরইমধ্যে যুক্তরাষ্ট্র, চীনসহ কয়েকটি দেশে মুক্তি পেয়েছে। তবে যুক্তরাজ্যে মুক্তি পাবে ২৯ জানুয়ারি। মুক্তির আগে থেকে আলোচিত এ ছবি মুক্তির পরও দর্শকদের আলোচনায় রয়েছে।

মহামারী কোভিড-১৯ এর মধ্যেও প্রত্যাশার চেয়ে বেশি দর্শক হলে গিয়ে ছবিটি দেখছে। ইতিবাচক মন্তব্য করেছেন বোদ্ধা সমালোচকরাও। অনেকে এ ছবিকে একইসঙ্গে ‘ম্যাডম্যাক্স: ফিউরি রোড’, ‘রেসিডেন্ট এভিল’ এবং ‘গডজিলা’ ছবির সংমিশ্রণ হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন।

ছবির অন্যতম আকর্ষণ জনপ্রিয় অভিনেত্রী মিলা জেভোভিচ। ‘রেসিডেন্ট এভিল’খ্যাত এই অভিনেত্রী অভিনয় করেছেন ছবির প্রধান চরিত্রে। বেশ কয়েক বছর ‘জম্বি’ নিধনে ব্যস্ত ছিলেন তিনি। আর এবার ধ্বংস করবেন বিশালকায় দৈত্য ও প্রাণীদের। তবে সেসব দৈত্যরা দুনিয়ার নয়। তাদের বসবাস অল্টারনেট ইউনিভার্স বা অন্য মহাবিশ্বে। যেখানে মিলা ঘটনাচক্রে স্থানান্তরিত হন। ‘মনস্টার হান্টার’ ছবিতে মিলাকে দেখা যাবে ক্যাপ্টেইন আর্টেমিস চরিত্রে।

মিলা জোভোভিচ ছাড়াও ছবিতে রয়েছেন টনি জা, টিপ হ্যারিস, ম্যাগান গুড, দিয়েগো বোনেতা, জোশ হেলম্যান, রন পার্লম্যান প্রমুখ।

এদিকে, বিতর্কিত কৌতুকের কারণে চীনের সিনেমা হল থেকে সরানো হয়েছে ‘মনস্টার হান্টার’। স্থানীয় দর্শকদের অভিযোগ এ সিনেমায় তাদের ব্যঙ্গ করা হয়েছে। এ নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় ব্যাপক প্রতিক্রিয়া দেখা যায়। মুক্তির প্রথম দিনেই চীন থেকে সিনেমাটি প্রায় ৫২ লাখ ডলার আয় করে। যা করোনার বাজারে বেশ ভালো অঙ্ক।

ডেডলাইন এক প্রতিবেদনে জানায়, বিতর্কের সূত্র ধরে কৌতুকের অংশটি সিনেমা থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে বাদ দেওয়া হয়েছে। এর সঙ্গে যুক্ত জার্মান প্রতিষ্ঠান কনস্ট্যান্টিন ফিল্ম ভাবাবেগে আঘাত দেওয়ার জন্য ক্ষমা চেয়েছে এক বিবৃতিতে।