চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

‘ফুটবল ৭১’-এর কাস্টিং নিয়ে চিন্তিত নন অনম

খেলার মাঠের যোদ্ধাদের নিয়ে অনম বিশ্বাসের ‘ফুটবল ৭১’। ‘দেবী’র পর এটি তার নতুন সিনেমা…

নিজের দ্বিতীয় সিনেমা নির্মাণ করতে যাচ্ছেন ‘দেবী’ খ্যাত নির্মাতা অনম বিশ্বাস। ২০১৯-২০২০ অর্থবছরে সরকারি অনুদানপ্রাপ্ত ছবিটির নাম ‘ফুটবল ৭১’।

ছবিতে স্বাধীন বাংলা ফুটবলের পাশাপাশি গল্পে তুলে ধরবেন মহান মুক্তিযুদ্ধের গৌরবোজ্জ্বল এক ইতিহাস। থাকবে ইতিহাসের জলজলে চরিত্রগুলো। বিশাল ব্যাপ্তীর এই সিনেমাটি নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে কাজ করছেন অনম বিশ্বাস ও তার দল।

বিজ্ঞাপন

বর্তমানে ‘ফুটবল ৭১’ কোন পর্যায়ে, খোঁজ নিতেই সম্প্রতি কথা হয় নির্মাতার সঙ্গে।

বিজ্ঞাপন

‘ফুটবল ৭১’ নিয়ে এখনও রিসার্চ এর কাজ চলছে জানিয়ে অনম বিশ্বাস চ্যানেল আই অনলাইনকে বলেন, করোনার কারণে ছবিটি নিয়ে যে খুব বেশি এগুনো গেছে তেমন নয়, এখনও রিসার্চ এর কাজ চলছে। তবে এই লকডাউনের সময়টাতে আমরা স্ক্রিপ্ট এর কাজ মোটামুটি চূড়ান্ত করেছি।

‘ফুটবল ৭১’ এ ছোট ছোট বহু বিষয় আমরা পর্দায় তুলে ধরতে চাই। আমরা কী প্যাটার্নে শুট করবো, স্বাধীন বাংলা ফুটবল সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে একটু একটু করে এগুচ্ছি। বলছিলেন অনম বিশ্বাস।

ছবিতে কারা অভিনয় করছেন, এ বিষয়ে কিছু চূড়ান্ত হয়েছে কিনা জানতে চাইলে নির্মাতা বলেন, ছবিতে কারা অভিনয় করবেন তা নিয়ে এখনও আমরা ভাবিনি। এই ছবি কিন্তু অন্য আট দশটা সিনেমার মতো নয় যে, ডায়ালগ বা অভিনয় দিয়ে উতরে যাবেন। এটা শারীরিক ভাবেও বেশ কষ্টসাধ্য কাজ হতে যাচ্ছে। ফলে যারা সব জেনেশুনে অ্যাফোর্ড দিতে রাজি হবেন, তাদের নিয়েই আমরা কাজটি করবো।

নির্মাতা বলেন, ‘ফুটবল ৭১’ এর গল্পটা ঠিকঠাক ভাবে বলতে পারা জরুরী, অন্যকিছু নয়। ফলে কাস্টিং নিয়ে খুব একটা চিন্তিত ও নই!

১৯৭১ সালের জুন মাসে স্বাধীন বাংলা ফুটবল দলটি গঠিত হয়। প্রথমদিকে অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম স্বাক্ষরিত চিঠিতে স্বাধীন বাংলা ফুটবল দলের কথা উল্লেখ করে মুজিবনগর গিয়ে তাতে যোগ দিতে বলা হয় খেলোয়াড়দের। এ সময় মুজিবনগরে প্রথমে গিয়ে উপস্থিত হন প্রতাপ শঙ্কর হাজরা, সাইদুর রহমান প্যাটেল, শেখ আশরাফ আলীসহ আলী ইমাম এবং অন্যরা। ৩১ জন বাছাই করে স্বাধীন বাংলা ফুটবল দল গঠন করা হয়। ২৫ জুলাই পশ্চিমবঙ্গের কৃষ্ণনগর স্টেডিয়ামে নদিয়া একাদশের বিপক্ষে স্বাধীন বাংলা ফুটবল দল প্রথম খেলতে নামে। ম্যাচটি ২-২ গোলে ড্র হয়।

বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে জনমত অর্জন এবং মুক্তিযোদ্ধাদের সাহায্যার্থে অর্থ সংগ্রহের উদ্দেশ্যে ভারতের বিভিন্ন স্থানে এ দলটি ফুটবল খেলায় অংশ নেয়।