চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

ফিলিস্তিনি সাংবাদিককে হত্যায় বিশ্বজুড়ে নিন্দার ঝড়

পশ্চিম তীরে ইসরায়েলি বাহিনীর গুলিতে আল জাজিরার ফিলিস্তিনী সাংবাদিকের মৃত্যুতে বিশ্বজুড়ে নিন্দার ঝড় উঠেছে। শিরিনকে ‘উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে’ হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছে আল-জাজিরা। ঘটনার সময় আরেক ফিলিস্তিনি সাংবাদিকও আহত হয়েছেন। সাহসী সাংবাদিক শিরীন আরব বিশ্বের সাংবাদিকদের কাছে একজন অনুকরণীয় ব্যক্তিত্ব ছিলেন।

শিরিন আবু আকলেহে কিছুদিন আগে এক ভিডিওতে বলেছিলেন, সাধারণ মানুষের কাছে যেতে আর তাদের কণ্ঠকে সারা বিশ্বে ছড়িয়ে দিতেই তিনি সাংবাদিকতাকে বেছে নিয়েছেন। আল জাজিরার ফিলিস্তিনি সাংবাদিক শিরিনকে বলা হতো ফিলিস্তিনের নির্যাতিত মানুষের কণ্ঠস্বর।

Reneta June

বুধবারও সংবাদে পশ্চিম তীরের মানুষের কণ্ঠস্বর তুলতে ধরতেই কাজ করে চলেছিলেন তিনি। আর এর মাঝেই মুখে লাগে ইসরাইলি সৈন্যদের গুলি। থেমে যায় শিরিনের কণ্ঠ। না, শুধু এক সাংবাদিকের কণ্ঠ নয়। অনেক সাধারণ মানুষের কণ্ঠ।

বিজ্ঞাপন

ইসরায়েল-ফিলিস্তিন সংঘাতে তথ্য প্রদানে সাহসী ভূমিকার জন্য আরব বিশ্বে পরিচিত মুখ ছিলেন শিরিন আবু আকলেহ। অভিজ্ঞ এই সাংবাদিকের মাধ্যমে প্রায় তিন দশক ধরে বিশ্ব জেনেছে ফিলিস্তিনের নির্যাতিত মানুষের সংগ্রামের কথা।

ফিলিস্তিনের অবরুদ্ধ অঞ্চল পশ্চিম তীরের জেনিন শহরে ইসরায়েলী বাহিনীর অভিযানের তথ্য সংগ্রহ করতে গিয়ে এবার নিজেই সংবাদের শিরোনাম হয়েছেন আল জাজিরার শিরিন আবু আকলেহ।

শিরিনের সহকর্মীরা জানিয়েছেন, ইসরাইলী সেনারা গুলি করার পর তাকে গুরুতর অবস্থায় হাসপাতালে নিলে চিকিৎসকরা মৃত ঘোষণা করেন।

ইসরাইলী বাহিনীর গুলিতে আরেক ফিলিস্তিনী সাংবাদিক আলি আল সামৌদি আহত হয়েছেন। তবে তার অবস্থা স্থিতিশীল। ওই ঘটনায় ফিলিস্তিনে কঠিন পরিস্থিতিতে গণমাধ্যমকর্মীদের কাজ চালানোর বাস্তবতা আরেকবার বিশ্বের সামনে এল।

আল জাজিরা অভিযোগ করেছে, শিরিনকে ‘ঠাণ্ডা মাথায়’ ও ‘ইচ্ছাকৃতভাবে’ হত্যা করা হয়েছে। ইসরাইলী সামরিক বাহিনী এই অভিযোগ অস্বীকার করে বলেছে, গোলাগুলির সময় ফিলিস্তিনী বন্দুকধারীর গুলিতে সম্ভবত সাংবাদিকের মৃত্যু হয়েছে। এ বিষয়ে ফিলিস্তিনী কর্তৃপক্ষের সাথে যৌথ তদন্তের কথা বলছে ইসরাইলের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

সাংবাদিকতার শিক্ষার্থী শিরিন বেশ কয়েকটি গণমাধ্যমে কাজ করার পর ১৯৯৭ সালে আল জাজিরায় যোগ দেন। ৫১ বছর বয়সী এই সাংবাদিক প্রতিষ্ঠানটির মাঠ পর্যায়ের শুরুর সাংবাদিকদের একজন ছিলেন। তার মৃত্যুতে আল-জাজিরা কার্যালয়ে শোক নেমে আসে। সহকর্মীরা তার মৃত্যুকে সংবাদমাধ্যমের জন্য বড় ক্ষতি হিসেবে বর্ণনা করেছেন।

মধ্যপ্রাচ্যে শান্তিরক্ষায় জাতিসংঘের বিশেষ সমন্বয়ক টর ওয়েনেসল্যান্ড বলেছেন, শিরিন হত্যায় দায়ীদের অবশ্যই জবাবদিহি করতে হবে।

জনমুখী সাংবাদিকতা আর অনন্য পেশাদারির কারণে সর্বসাধারণের ভালবাসা নিয়ে বিদায় নিচ্ছেন ফিলিস্তিনি সাংবাদিক শিরিন আবু আকলেহে।