চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

ফিট থাকতে গোমূত্র পান অক্ষয়ের, বিজ্ঞান কী বলে?

প্রতিদিনই গোমূত্র পান করতেন বলিউড তারকা অক্ষয় কুমার। ডিসকভারি চ্যানেলের ম্যান ভার্সেস ওয়াইল্ড শো-র জনপ্রিয় হোস্ট বেয়ার গ্রিলসকে নিয়ে ইনস্টাগ্রামের লাইভ শো-তে এই তথ্য নিজেই জানিয়েছেন অক্ষয়। জানিয়েছেন, নিয়মিত গোমূত্র পান করাই তার ফিটনেসের রহস্য।

গোমূত্র নিয়ে ভারতে এর আগেও অনেকেই কথা বলেছেন। কট্টরপন্থী হিন্দু সংগঠন হিন্দু সহাসভা দিল্লিতে গোমূত্র পার্টিও করেছিল। করোনাকালেও বিজেপির বিধায়ক গোমূত্র পান করার পরামর্শ দিয়েছেন। কিন্তু এই প্রথম কোনো বলিউড তারকা গোমূত্র পানের কথা স্বীকার করায় বিষয়টি নিয়ে হইচই পড়ে গেছে। প্রশ্ন উঠেছে, গোমূত্র কি আসলেও ফিটনেস ধরে রাখতে পারে মানুষের?

বিজ্ঞাপন

আয়ুর্বেদিক শাস্ত্র যা বলে: আয়ুর্বেদিক শাস্ত্রে গোমূত্রকে উপকারী মনে করে হয়। ১০০০ বছরের পুরনো এই শাস্ত্রে বলা হয় গোমূত্র প্রাকৃতিক খনিজ উপাদানের ভালো উৎস। দাবী করা হয়, নিয়মিত পান করলে শরীরের নানা পুষ্টির অভাব দূর হয় এবং রক্ত পরিষ্কার হয়।

বিজ্ঞাপন

আয়ুর্বেদিক শাস্ত্রে বিশ্বাস করা হয় গরু যখন মাঠে ঘাস খায়, তখন অনেক ঔষধি গাছের পাতাও খায়। সেইসব ঔষধি গুনাগুণের কিছু অংশ গোমূত্রেও থাকে। গর্ভবতী গরুর মূত্রে বিশেষ ধরণের হরমোন ও মিনারেলও পাওয়া যায় বলে দাবী করা হয়। তাই বহুকাল ধরে ভারতে নানা চিকিৎসায় গোমূত্র ব্যবহারের প্রচলন আছে। বিশেষ করে জ্বর, রক্তশূন্যতা, পেটের ব্যথা, বমি ভাব, ডায়াবেটিকস, এমনকি ক্যানসারের চিকিৎসাতেও ব্যবহার করা হয় গোমূত্র।

নানা ধরণের প্রসাধনী তৈরিতেও গোমূত্র ব্যবহার করা হয় ভারতে। এগুলোও বেশ জনপ্রিয় ভারতের মানুষের কাছে।

বিজ্ঞান যা বলে: আয়ুর্বেদিক শাস্ত্রে গোমূত্রকে উপকারী মনে করা হলেও এই দাবীর পেছনে কোনো যুক্তি খুঁজে পায়নি বিজ্ঞান। গোমূত্রে সোডিয়াম, পটাশিয়াম, ক্রিটিনিন, ফসফরাস এবং এপিথেলিয়াল সেল থাকে। কিন্তু গোমূত্র পান করার বিষয়টিকে স্বাস্থ্যসম্মত মনে করে না বিজ্ঞান। বিজ্ঞানের মতে, এসব মিনারেল মাটির সার হিসেবে উপকারী, স্বাস্থ্যের জন্য নয়। -টাইমস অব ইন্ডিয়া