চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

আরও ১৮ লাখ ফাইজারের টিকা পেল বাংলাদেশ

যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশকে ফাইজারের তৈরি আরও ১৮ লাখ ডোজ কোভিড-১৯ টিকা উপহার দিয়েছে। এ নিয়ে মোট ১ কোটি ৬৮ লাখ টিকা উপহার পেল বাংলাদেশের মানুষ।

নতুন এই ডোজগুলো বাংলাদেশ সরকারের ১২ বছর বা তদুর্ধ্বো বয়সীদের কোভিড টিকাদান কার্যক্রম অব্যাহতভাবে সম্প্রসারণে এবং ২০২১ সালের শেষ নাগাদ টিকা পাওয়ার জন্য উপযুক্ত জনসংখ্যার ৪০ শতাংশকে টিকাদানের লক্ষ্য অর্জনে সহায়তা করবে।

ফাইজারের এই টিকা অনুদান যুক্তরাষ্ট্র সরকারের বিশ্বব্যাপী কোভিড-১৯ মোকাবেলায় নেতৃত্ব দিতে যুক্তরাষ্ট্রের বিনামূল্যে ১০০ কোটি টিকা অনুদানের বৃহত্তর প্রতিশ্রুতির অংশ, যা ২০২২ সালের মধ্যে বিতরণ করা হবে।

বিজ্ঞাপন

যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশ সরকারের জাতীয় কোভিড-১৯ টিকাদান কার্যক্রম পরিচালনা ও মহামারি মোকাবেলা জোরদারকরণে সহায়তা করতে ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করছে। যুক্তরাষ্ট্র ইতোমধ্যে ৬,৮০০ এরও বেশি স্বাস্থ্যসেবাদানকারীকে নিরাপদে টিকাদান বিষয়ে প্রশিক্ষণ দিয়েছে এবং স্বাস্থ্যকেন্দ্রে সঠিক নিয়ম মেনে কোভিড-১৯ টিকা সংরক্ষণে সহায়তা দেওয়ার পাশাপাশি বাংলাদেশজুড়ে টিকা পরিবহনের সুবিধার্থে ১৮টি কোল্ড-চেইন ফ্রিজার ট্রাক অনুদান দিয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্র সরকার টিকা অনুদান ও সহায়তা ছাড়াও কোভিড-১৯ সংক্রান্ত কর্মকান্ডে আরো ১২১ মিলিয়ন ডলার বা ১,০২৮ কোটি টাকারও বেশি অনুদান সহায়তা দিয়েছে। এই সহায়তা মানুষের জীবন বাঁচিয়েছে এবং কোভিড-১৯ আক্রান্ত ব্যক্তিদের চিকিৎসা করা সম্ভব হয়েছে, পরীক্ষা করার সামর্থ্য ও মনিটরিং শক্তিশালী করেছে, কোভিড রোগী ব্যবস্থাপনা ও সংক্রমণ প্রতিরোধ এবং নিয়ন্ত্রণের অনুশীলন উন্নত করেছে এবং সরবরাহ ব্যবস্থা ও লজিস্টিক ব্যবস্থাপনা পদ্ধতি উন্নত করেছে। এছাড়াও যুক্তরাষ্ট্রের সহায়তা সম্মুখসারির কর্মীদের সুরক্ষা প্রদান করেছে এবং কোভিড-১৯ থেকে নিজেকে রক্ষার উপায়সহ এই বিষয়ে জনগণকে অবহিত করেছে ।

যুক্তরাষ্ট্র বিশ্বব্যাপী কোভ্যাক্স প্রচেষ্টাকে সহায়তা করতে ৪ বিলিয়ন ডলার বা ৩৪ হাজার কোটি টাকা সহায়তা করেছে। যার মধ্যে আল্ট্রা-কোল্ড চেইন সংরক্ষণ, পরিবহন, কোভিড টিকার নিরাপদ ব্যবস্থাপনা অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। এর ফলে যুক্তরাষ্ট্র বিশ্বব্যাপী কোভিড-১৯ টিকার ন্যায়সঙ্গত প্রবেশগম্যতা তৈরিতে বিশ্বের বৃহত্তম দাতা দেশে পরিণত হয়েছে।

বিজ্ঞাপন