চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

প্লাস্টিক দূষণ রোধের শপথে শুরু ‘চ্যানেল আই প্রকৃতি মেলা’

‘প্রকৃতি সম্পর্কে সচেতন হলে জীবনও সুন্দর থাকবে’

প্রকৃতিবিষয়ক নানা অনুষঙ্গের মাধ্যমে সচেতনতা সৃষ্টির চেষ্টা অব্যাহত রাখতে প্রকৃতি ও জীবন ফাউন্ডেশন এর এই আয়োজন

মাঘের সকালে মেঘলা আকাশের সঙ্গে ছিল মৃদু বাতাস। এমন সকালে চ্যানেল আইয়ের প্রাঙ্গণ মেতে উঠে ঢাকের শব্দে। এরপরেই দলীয় নৃত্য। এরপর পর একে একে দেশের গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের বক্তব্য শেষে টিয়া পাখি উড়িয়ে উদ্বোধন ঘোষণা করা হয় অষ্টম ‘চ্যানেল আই প্রকৃতি মেলা’র।

প্রকৃতিবিষয়ক নানা অনুষঙ্গের মাধ্যমে সচেতনতা সৃষ্টির চেষ্টা অব্যাহত রাখতে প্রকৃতি ও জীবন ফাউন্ডেশন এই আয়োজন করেছে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী মো. শাহাবুদ্দিন, তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ, চ্যানেল আইয়ের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফরিদুর রেজা সাগর সহ চ্যানেল আইয়ের পরিচালনা পর্ষদের সদস্য, প্রকৃতিবিদ, প্রকৃতিপ্রেমীসহ দেশের গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।

উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রকৃতি ও জীবন ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান মুকিত মজুমদার বাবু বলেন, প্রকৃতি মেলার উদ্দেশ্য হচ্ছে আমাদের সবাইকে সচেতন করা। যেই পরিবেশ দিন দিন রুগ্ন হয়ে যাচ্ছে আমাদেরই কারণে, সেই পরিবেশকে যেন আমরা ভালো রাখতে পারি এবং বুঝতে পারি, সেজন্যই এই উদ্যোগ।

চ্যানেল আইয়ের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফরিদুর রেজা সাগর বলেন, ‘প্রকৃতি ও জীবন থেকে যদি ‘ও’ বাদ দেয়া হয়, তাহলে থাকে প্রকৃতি জীবন। ৮ থেকে ৮০ বছর পর্যন্ত যারা এখানে এসেছেন, তারা যদি প্রকৃতি সম্পর্কে সচেতন হতে পারেন, তাহলে জীবন সুন্দর থাকবে। ভালো থাকা যদি যুদ্ধ হয়, তাহলে এই যুদ্ধে জয়ের জন্য যা করা করা দরকার আমরা সব করবো, এটাই হবে আজকের প্রতিজ্ঞা।’

বন ও জলবায়ু পরিবর্তনমন্ত্রী মো. শাহাবুদ্দিন বলেন, ‘প্রকৃতির ক্ষতি করছি আমরা মানুষেরাই। তাই প্রকৃতিও তার বিরূপ প্রভাব আমাদের উপর ফেলছে। আমরা যদি সতর্ক না হই, প্রকৃতির ক্ষতি করি, তাহলে আমরা রক্ষা পাব না। প্রকৃতি তার বদলা নিবেই’।

Advertisement

তথ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ হাছান মাহমুদ বলেন, মানুষ বাড়ার সাথে সাথে মানুষের হিংস্র থাবা প্রকৃতির উপর পড়ছে। যে দেশে মানুষের ঘনত্ব পৃথিবীতে সর্বোচ্চ, সেখানে প্রকৃতি প্রচণ্ড হুমকির মুখে। এই অনুষ্ঠানটি প্রতিবছর আয়োজন করার মাধ্যমে সমাজের প্রতিটি স্তরে সচেতনতা বাড়াতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে।

এবারের মেলায় প্লাস্টিক দূষণ রোধ করার ওপর জোর দেয়া হয়েছে। সুর ও সংগীতে থাকছে সেই আহ্বান ই। এছাড়াও ক্যারেক্টার শো, মূকাভিনয় থাকছে দিনভর। প্রাণপ্রকৃতি নিয়ে প্রদর্শনী, চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতার আয়োজনও করা হয়েছে। বসেছে অসংখ্য স্টল। সব মিলিয়ে চ্যানেল আই প্রাঙ্গণ সবুজে সাজানো হয়েছে।

প্রকৃতি রক্ষায় গণসচেতনতা সৃষ্টিই প্রকৃতি মেলার মূল লক্ষ্য জানালেন আয়োজকরা। প্রকৃতি ও জীবন ফাউন্ডেশনের পাশাপাশি সবাইকে পরিবেশ-প্রকৃতি রক্ষায় কাজ করে যাওয়ার আহ্বান জানান বক্তারা।

চ্যানেল আই প্রকৃতি মেলায় ২০১৯ এ সহযোগী হিসেবে আছে নূর ইকো-ব্রিকস্ এবং পারটেক্স বোর্ড।

‘চ্যানেল আই প্রকৃতি মেলা’ চ্যানেল আই এ সরাসরি সম্প্রচার করা হচ্ছে।

ছবি: সাকিব উল ইসলাম