চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

প্রোটিয়াদের ভারত সফর: মুণ্ডহীন মুরগির ছোটাছুটি!

তৃতীয় টেস্টে ভারতের কাছে ইনিংস ও ২০২ রানের বিশাল ব্যবধানে হেরেছে সাউথ আফ্রিকা। ম্যাচের দুই ইনিংসের একটিতেও দুইশ’র ঘরে যেতে পারেনি প্রোটিয়ারা। ভারতের কাছে তাদের এটি বৃহত্তম টেস্ট হার। সঙ্গে প্রথমবার হোয়াইটওয়াশও। পুরো টেস্ট সিরিজে ডু প্লেসিসরা যেভাবে খাবি খেয়েছেন, সেটাকে ‘মুণ্ডহীন মুরগির’ ছোটাছুটির সঙ্গে তুলনা করেছেন দুই প্রোটিয়া সাবেক ক্রিকেটার।

ভারতের ৯ উইকেটে করা ৪৯৭ রানের জবাবে সাউথ আফ্রিকার প্রথম ইনিংস ১৬২তে এবং দ্বিতীয় ইনিংস ১৩৩ রানেই শেষ হয়। সিরিজের প্রথম টেস্ট ২০৩ রানে হারের পর দ্বিতীয় টেস্টে ১৩৭ রানে হারে সাউথ আফ্রিকা।

বিজ্ঞাপন

সিরিজ শেষে সাউথ আফ্রিকা দলের কড়া সমালোচনা করেন দেশটির সাবেক দুই ক্রিকেটার পিটার কারস্টেন এবং ব্রায়ান ম্যাকমিলান।

সাউথ আফ্রিকার হয়ে ১২টি টেস্ট ও ৪০টি ওয়ানডে খেলা কারস্টেন টাইমস অব ইন্ডিয়াকে সাক্ষাতকারে বলেন, ‘ভারতে আমাদের ক্রিকেটারদের এত খারাপভাবে সংগ্রাম করতে দেখে আমি মোটেই অবাক হইনি। সাবেক ক্রিকেটার হিসেবে, আমরা এটি বিশ্বকাপের পর থেকেই দেখতে পেয়েছি, সেখানেও আমরা সেরা ছিলাম না। অবশ্য যেকোনো ক্ষেত্রেই ভারতের মাটিতে ভারতের বিপক্ষে খেলাটা খুব কঠিন।’

বিজ্ঞাপন

এই বাজে অবস্থা থেকে বের হতে সাউথ আফ্রিকার সাবেক ক্রিকেটারদের দলে সংযুক্ত করার পরামর্শও দেন গ্যারি কারস্টেনের এই সৎ ভাই।

তার কথায়, ‘সস্প্রতি বড় নামের এবং অভিজ্ঞ বেশ কয়েকজন খেলোয়াড় অবসর নিয়েছেন; যার মধ্যে এবি ডি’ভিলিয়ার্স ও হাশিম আমলার মতো ক্রিকেটার রয়েছেন। তাছাড়া সাউথ আফ্রিকার অনেক ক্রিকেটার কলপ্যাক চুক্তি সই করে ইংল্যান্ডে কাউন্টি ক্রিকেট খেলছেন (এই চুক্তির ফলে একজন ক্রিকেটার দেশের হয়ে না খেলে ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের যেকোনো দেশে কাউন্টি ক্রিকেট খেলতে পারেন। সেদেশে আর বিদেশি হিসেবে বিবেচিত হবেন না) যেটা সাউথ আফ্রিকার ক্রিকেটকে খুবই ক্ষতি করছে। আমি বর্তমান কোচকে মোটেই দোষ দিতে চাই না। তবে গত কয়েক বছর ধরেই আমি নিজের সঙ্গে গ্যারি কারস্টেন, অ্যাশলে প্রিন্স বা মার্ক বাউচারের কথা বলে আসছি। কিন্তু কেউ সেটা আমলে নেয়নি।’

কারস্টেন বাজে পারফরম্যান্স শব্দ ব্যবহার করলেও তার চেয়ে একধাপ এগিয়ে সাউথ আফ্রিকা দলকে ‘মুণ্ডুহীন মুরগির’ সঙ্গে তুলনা করেন ম্যাকমিলান।

সাবেক এ ব্যাটসম্যানের মন্তব্য, ‘আমরা এখন হিমশৈলের নীচে। আমরা মাথাছাড়া মুরগির মতো সর্বত্র ছোটাছুটি করেছি। দলে কোনো দিকনির্দেশনা নেই, কোনো নেতৃত্বও নেই।’

Bellow Post-Green View