চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

‘প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে ফুফাতো বোনের গায়ে আগুন’

নরসিংদীতে জমি সংক্রান্ত মামলায় প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতেই পরিকল্পিতভাবে তরুণী ফুলন বর্মণের গায়ে আগুন দেয় ফুফাতো ভাই ও তার দুই সহযোগী।

শুক্রবার বিকেলে নরসিংদীর জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট শারমিন আক্তার পিংকীর আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে এ তথ্য জানায় গ্রেপ্তার হওয়া রাজু সূত্রধর।

বিজ্ঞাপন

রাজু সূত্রধর (২১) নরসিংদী শহরের বীরপুর মহল্লার মৃত কেশব সূত্রধরের ছেলে ও নরসিংদী বাজারের একটি মাছের দোকানের কর্মচারী।

এ ঘটনায় প্রধান অভিযুক্ত ফুফাতো ভাই ভবতোষ বর্মণ ও অপর সহযোগী আনন্দ বর্মণকেও গ্রেপ্তার করেছে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ।

শুক্রবার রাত ৮টায় এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানিয়েছেন নরসিংদীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) জাকির হাসান।

বিজ্ঞাপন

তিনি জানান, ফুলন বর্মণের গায়ে আগুন দেয়ার ঘটনায় সন্দেহভাজন হিসেবে পর্যায়ক্রমে ৬ জনকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদের পর ২০ জুন বিকেলে নরসিংদী শহরের শিক্ষাচত্বর এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয় ফুলন বর্মণের ফুফাতো ভাই ভবতোষের বন্ধু রাজু সূত্রধরকে।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে বন্ধু রাজু সূত্রধর পুলিশকে জানায়, প্রতিবেশি সুখ লাল ও হিরা লালের পরিবারকে জমি সংক্রান্ত মামলায় ফাঁসাতে পরিকল্পিতভাবেই ফুলন বর্মণের গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন দেয়া হয়। ভবতোষের নেতৃত্বে সহযোগী রাজু সূত্রধর ও আনন্দ বর্মণ এতে অংশ নেয়।

পরে ঘটনার বিবরণ দিয়ে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয় রাজু সূত্রধর। এ ঘটনায় প্রধান অভিযুক্ত ফুফাতো ভাই ভবতোষ বর্মণ ও অপর সহযোগী আনন্দ বর্মণকেও গ্রেপ্তার করেছে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ।

গত ১৩ জুন রাতে নরসিংদী শহরের বীরপুর মহল্লার যোগেন্দ্র চন্দ্র বর্মণের মেয়ে ফুলন বর্মণের গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন দিয়ে পালিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা। ঘটনার একদিন পর ফুলন বর্মণের বাবা যোগেন্দ্র চন্দ্র বর্মণ বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা তিনজনকে আসামি করে নরসিংদী সদর মডেল থানায় মামলা দায়ের করেন।

শরীরের ১২ ভাগ পোড়া অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন ফুলন বর্মণ।