চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

প্রকৃতি সংরক্ষণে সবাইকে একযোগে কাজ করতে হবে: পরিবেশ মন্ত্রী

চ্যানেল আই প্রকৃতি সংরক্ষণ পদক  পেলেন সিআরপি’র প্রতিষ্ঠাতা ভ্যালেরি এন টেইলর

পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিন বলেছেন, প্রাকৃতিক পরিবেশ সংরক্ষণ করা কোনো ব্যক্তি, প্রতিষ্ঠান বা সরকারের একার পক্ষে সম্ভব নয়। এক্ষেত্রে স্ব স্ব অবস্থানে থেকে প্রত্যেককেই এগিয়ে আসতে হবে।

শনিবার সন্ধ্যায় চ্যানেল আই চেতনা চত্বরে প্রকৃতি ও জীবন ফাউন্ডেশন – চ্যানেল আই প্রকৃতি সংরক্ষণ পদক-২০১৯ প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির তিনি বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

বিজ্ঞাপন

মন্ত্রী বলেন, নিবিড় সবুজের এই দেশ মানবসৃষ্ট বিভিন্ন কারণে আজ ধীরে ধীরে তার সজীবতা হারিয়ে মলিন হয়ে পড়েছে। প্রকৃতি ও জীবনের সুস্থতার জন্য মলিন প্রকৃতিতে প্রাণের সঞ্চার ফিরিয়ে আনতে আমাদের সবাইকে একযোগে কাজ করতে হবে।

বিজ্ঞাপন

পরিবেশ মন্ত্রী জানান, সরকার ইতোমধ্যে প্রকৃতি ও পরিবেশ সংরক্ষণে নানাবিধ উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। ভবিষ্যৎ কর্মপরিকল্পনার অংশ হিসাবে বর্তমান সরকার পরিবেশের ক্ষতি না করে উন্নয়ন কর্মকাণ্ড চালানোর নীতি গ্রহণ করেছে। দেশে শিল্পায়ন ও নগরায়নের ফলে ব্যাপক কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হলেও দেশীয় পরিস্থিতিতে পরিবেশ যাতে ক্ষতিগ্রস্থ না হয় সে দিকে সতর্ক দৃষ্টি রাখা হচ্ছে।

বিজ্ঞাপন

তিনি বলেন , প্রতিবেশ ও জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণ, পরিবেশ দূষণ নিয়ন্ত্রণ, জলবায়ু পরিবর্তনের অভিঘাত মোকাবেলা, বনজসম্পদ উন্নয়ন ও সমুদ্র সম্পদের টেকসই ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে দেশের বর্তমান ও ভবিষ্যৎ জনগোষ্ঠীর বাস উপযোগী টেকসই পরিবেশ নিশ্চিতকরণে পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয় নিরলস কাজ করে চলেছে ।

মো. শাহাব উদ্দিন তার বক্তব্যে আয়োজকদের ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন:  প্রতিষ্ঠার জন্মলগ্ন থেকেই প্রকৃতি ও জীবন ফাউন্ডেশন এর কাজের মাধ্যমে দেশের বন, বন্যপ্রাণী ও পরিবেশ সংরক্ষণে সরকার তথা পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন কার্যক্রম সম্পর্কে জনগণ অবহিত হতে পারছে। যার ফলশ্রুতিতে তৃণমূল পর্যায়ে বন, বন্যপ্রাণী ও পরিবেশ সংরক্ষণে গণসচেতনতা তৈরি হচ্ছে।

পরিববেশমন্ত্রী এসময়, ইটভাটা, শিল্প কারখানা এবং যানবাহনের মালিকদের পরিবেশ দূষণ রোধে কাজ করার আহ্বান জানান।

প্রকৃতি ও জীবন ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান মুকিত মজুমদার বাবু বলেন, বাংলাদেশের প্রকৃতি ও জীবনের বন্ধন অটুট রাখায় বিশেষ অবদানের জন্য এ বছর সেন্টার ফর দ্যা রিহ্যাবিলিটেশন অফ দ্যা প্যারালাইজড (সি.আর.পি) এর প্রতিষ্ঠাতা ভ্যালেরি এ. টেইলর কে প্রকৃতি সংরক্ষণ পদক-২০১৯ প্রদানে আমাদের অনেক কিছু শেখার আছে। তিনি সুদুর ইংল্যান্ড থেকে এদেশে এসে পক্ষাঘাতগ্রস্তদের সেবা ও আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে কাজ করার পাশাপাশি প্রকৃতি ও পরিবেশ সংরক্ষণেও নীরবে কাজ করে যাচ্ছেন। এই মহিয়সী নারীর মতো বাংলার ১৬ কোটি মানুষ যদি প্রকৃতি সংরক্ষণে সচেতন হতো তবে আমরা সেই সবুজ শ্যামল বাংলা ফিরে পেতাম।

প্রকৃতি ও জীবন ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান মুকিত মজুমদার বাবুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের সচিব আবদুল্লাহ আল মোহসীন চৌধুরী; প্রধান বন সংরক্ষক  মোহাম্মদ সফিউল আলম চৌধুরী; পরিবেশ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক এ.কে.এম রফিক আহাম্মদ; ইমপ্রেস টেলিফিল্ম লিমিটেড ও চ্যানেল আইয়ের ব্যবস্থাপনা পরিচালক জনাব ফরিদুর রেজা সাগর।