চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

পোশাক শ্রমিকদের প্রযুক্তিগত দক্ষতা বাড়ানোর পরামর্শ জার্মান উদ্যোক্তাদের

জার্মানিতে পোশাকশিল্পের প্রযুক্তি প্রদর্শনী ১৪ মে

পোশাক পণ্যের উৎপাদন বাড়াতে এবং সময়ের সঙ্গে ক্রেতার চাহিদা মেটাতে বাংলাদেশের তৈরি পোশাক কারখানাগুলোর অটোমেশন জরুরি বলে অভিমত ব্যক্ত করেছেন জার্মানির টেক্সটাইল মেশিনারি অ্যাসোসিয়েশন, টেক্সটাইল কেয়ার, ফ্যাব্রিক ও লেদার টেকনোলজির চেয়ারম্যান গুন্টার ভাইট। একই সঙ্গে তিনি বাংলাদেশের পরিবেশবান্ধব পোশাক কারখানার প্রশংসা করেন।

গুণ্টার ভাইট বলেন, যে যন্ত্র জার্মানিতে একজন শ্রমিক চালান, একই যন্ত্র চালাতে বাংলাদেশে প্রয়োজন হয় একাধিক লোকের। তাই শ্রমিকদের প্রযুক্তিগত দক্ষতা বাড়াতে হবে বাংলাদেশকে।

রোববার রাজধানীর সোনারগাঁও হোটেলে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

আগামী ১৪ থেকে ১৭ মে জার্মানির ফ্রাঙ্কফুর্টে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া আন্তর্জাতিক মেলা টেকটেক্সটিল এবং টেক্সপ্রসেস-এর তথ্য জানাতে সংবাদ সম্মেলনটি করা হয়। এতে জার্মানভিত্তিক প্রদর্শনী প্রতিষ্ঠান মেসে ফ্রাঙ্কফুর্টের বাংলাদেশ শাখার ব্যবস্থাপনা পরিচালক ওমর সালাহউদ্দীন, বাংলাদেশে মেসে ফ্রাঙ্কফুর্টের হেড অব  অপারেশন্স রুমানা আফরোজ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

গুন্টার ভাইট বলেন, বাংলাদেশে বেশিসংখ্যক পরিবেশবান্ধব পোশাক কারখানা (গ্রিন ফ্যাক্টরি) রয়েছে, যা বিশ্বে বাংলাদেশের পোশাকশিল্পের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করছে। তবে বাংলাদেশের পোশাক কারখানাগুলোর সক্ষমতা থাকলেও সনাতন পদ্ধতিতে চলার কারণে উৎপাদন কম। এ থেকে বের হওয়ার জন্য কারখানাগুলোর অটোমেশনে যাওয়া জরুরি।

ব্র্যান্ডগুলো নয়, এখন ফ্যাশন নির্ধারণ করছে ক্রেতারা এমন তথ্য জানিয়ে তিনি বলেন, বিশ্বের ফ্যাশন এখন দ্রুত পরিবর্তন হচ্ছে এবং ক্রেতারা ঘরে বসে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে পণ্য বুঝে নিতে চায়। এসব দিক বিবেচনা করে অটোমেশন ও ডিজিটাল প্রযুক্তির বিকল্প নেই বাংলাদেশের জন্য। আর এটি করার জন্য বাংলাদেশের বড় শক্তি পরিবেশবান্ধব কারখানাগুলো।

গুন্তার ভাইট বলেন, বর্তমান বিশ্বে প্রতিযোগিতামূলক শিল্পে এগিয়ে থাকতে চাইলে কারখানাগুলোরও সে অনুযায়ী সর্বশেষ প্রযুক্তি নিয়ে এগিয়ে থাকতে হবে। উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্র হবে শুধু কম দাম নয়, ভালো মান, ডেলিভারির সময় এবং নতুন উদ্ভাবন নিশ্চিত করা।

ফ্রাঙ্কফুর্টের মেলায় ফ্যাশন, ডিজাইন, কাটিং, সুয়িং, নিট, অ্যামব্রয়ডারি, ফিনিশিংসহ বিভিন্ন কাজে উন্নত প্রযুক্তির যন্ত্রাংশ প্রদর্শন করা হবে।

বাংলাদেশে শ্রমিকের সহজলভ্যতাকে এই শিল্পর জন্য ইতিবাচক হিসেবে দেখেন গুন্টার ভাইট। তিনি বলেন, অনেক দেশ শ্রমিক সংকটে পড়ে। বাংলাদেশে পোশাকশিল্পে অনেক শ্রমিক কাজ করে এটা এ শিল্পের জন্য আশীর্বাদ। তাদের দক্ষ করে তুলতে পারলে এ শিল্প আরও এগিয়ে যাবে।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, টেকনিক্যাল টেক্সটাইলের বিশ্বের সবচেয়ে বড় প্রদর্শনী ‘টেক্সপ্রসেস’ এবং বিশেষায়িত টেক্সটাইলের প্রদর্শনী ‘টেকটেক্সটিল’ আগামী ১৪ মে শুরু হবে জার্মানির ফ্রাঙ্কফুর্টে। চার দিনের প্রদর্শনী দুটির আয়োজক জার্মানিভিত্তিক বিশ্বের সবচেয়ে বড় প্রদর্শনী প্রতিষ্ঠান ম্যাসে ফ্রাঙ্কফুর্ট।

প্রদর্শনীতে উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে কীভাবে কাঁচামালের অপচয় রোধ এবং উৎপাদন ব্যয় কমানো যায়, সেই প্রযুক্তি প্রদর্শন করা হবে। তৈরি পোশাক ও বিশেষায়িত টেক্সটাইলের ভবিষ্যৎ বাজার ও সর্বাধুনিক প্রযুক্তি নিয়ে আলোচনা করবেন আন্তর্জাতিক বিশেষজ্ঞরা। ভিডিএমএ টেক্সপ্রসেসের অংশীদার হিসেবে কাজ করছে।