চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

পেসারদের সুযোগ শ্রীলঙ্কায়

স্পিন-নির্ভর বোলিং আক্রমণ দিয়ে প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করার পরিকল্পনা থেকে সরে আসছে শ্রীলঙ্কা। দলটির প্রধান নির্বাচক আসান্থা ডি মেল বলেছেন, আসন্ন টেস্ট সিরিজে বাংলাদেশকে হারাতে তাদের শক্তি হবে পেস। পাঁচ পেসার রেখে মূল স্কোয়াড গঠনের পরিকল্পনার কথাও বলেছেন তিনি।

পেসারদের উপর আস্থা রেখেই তিন ম্যাচ টেস্ট সিরিজের জন্য ২৩ সদস্যের প্রাথমিক দল ঘোষণা করেছে শ্রীলঙ্কা। আগামী সপ্তাহ থেকে শুরু হবে তাদের আনুষ্ঠানিক অনুশীলন ক্যাম্প।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

শ্রীলঙ্কান সংবাদমাধ্যমের খবর নিঃসন্দেহে উজ্জীবিত করবে টাইগার পেসারদেরও। জাতীয় দলের প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীনও বলছিলেন বাংলাদেশ পেসারদের সুযোগ বাড়ানোর কথা। তিন পেসার খেলানোর ভাবনার কথা জানিয়েছেন তিনি। তেমন হলে তিন টেস্টের জন্য অন্তত পাঁচ পেসারকে রাখতে হবে স্কোয়াডে।

অথচ দেশের মাটিতে সিরিজ হলে দেখা যেত অন্যরকম চিত্র। পেস আক্রমণে বাংলাদেশের দুর্বলতার কারণ হিসেবে সুযোগের অভাবকে দায়ী করেন অনেকে। স্পিন-নির্ভরতার কারণে সেভাবে গড়ে ওঠেনি ফাস্ট বোলিং ইউনিট। বিদেশ সফর ও কন্ডিশন অনুযায়ী বদলাতে হচ্ছে পরিকল্পনা।

ঘরের মাঠে এক পেসার নিয়ে একাদশ সাজালেও বিদেশে সেটি সম্ভব নয়। ২০১৭ সালে সবশেষ শ্রীলঙ্কা সফরে দুই টেস্টেই দুজন করে পেসার খেলিয়েছে বাংলাদেশ। বোলিংয়ে সাকিব-মিরাজ বড় অবদান রাখলেও মোস্তাফিজ-তাসকিন-শুভাশিষরাও মন্দ করেননি। টেস্ট স্পেশালিস্ট পেস বোলার আবু জায়েদ-ইবাদতরা তখনও জাতীয় দলে আসেননি।