চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

পেঁয়াজের দাম বেশি রাখায় ৩ ব্যবসায়ীকে জরিমানা

মাত্রাতিরিক্ত দামে পেঁয়াজ বিক্রি করা এবং পেঁয়াজের মূল্য তালিকা না টাঙানোয় রাজধানীর শ্যামবাজারের আড়তে তিন দোকানকে ২০ হাজার টাকা করে জরিমানা করেছে আন্তঃমন্ত্রণালয় অভিযানিক দল।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর শ্যামবাজারের আড়তে অভিযান চালিয়ে অভিযুক্তদের এই জরিমানা করা হয়। শ্যামবাজারই রাজধানীতে পাইকারি পেঁয়াজের সবচেয়ে বড় মার্কেট।

বিজ্ঞাপন

বাণিজ্য, কৃষি ও খাদ্য মন্ত্রণালয়, ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর এবং সিটি করপোরেশনের সমন্বয়ে গঠিক এই অভিযানিক দলটিতে দিয়েছেন ভোক্তা অধিকারের সহকারী পরিচালক আব্দুল জব্বার মণ্ডল। অভিযানে বিভিন্ন দোকানে পেঁয়াজের বিপুল মজুদ দেখা গেছে।

বিজ্ঞাপন

এ সময় মেসার্স বাণিজ্যালয়, নিট বাণিজ্যালয়, সিকদার অ্যান্ড সন্স ও রফিক ট্রেডার্স নামে ৪টি দোকানে অভিযান চালানো হয়। এর মধ্যে রফিক ট্রেডার্স পাইকারি ১২০ টাকা কেজি দরে পেঁয়াজ বিক্রি করলেও বাকি দোকানগুলো পেঁয়াজ বিক্রি করছে ১৪০ থেকে ১৫৫ টাকা কেজি দরে। পরে রফিক ট্রেডার্স ছাড়া বাকি ৩ দোকানকে ২০ হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়।

আব্দুল জব্বার মণ্ডল বলেন, পেঁয়াজ মজুদ করে বেশ কয়েকদিন ধরেই বেশি দামে বিক্রি করা হচ্ছে— এমন অভিযোগের ভিত্তিতে আজকের অভিযানটি পরিচালনা করা হয়েছে। অভিযানের শুরুতে নিট বাণিজ্যালয়ে পেঁয়াজের মজুদ পাওয়া গেছে। কিন্তু তারা এর কোনো চালান দেখাতে পারেনি। তারা ১৪০ থেকে ১৫৫ টাকা কেজি দরে পেঁয়াজ বিক্রি করছে। মেসার্স বাণিজ্যালয়ও পেঁয়াজ বিক্রি করছে ১৪০ থেকে ১৫৫ টাকা দরে। তারাও পেঁয়াজ কেনার চালান দেখাতে পারেনি। একই অভিযোগ রয়েছে সিকদার অ্যান্ড সন্সের বিরুদ্ধেও।

জব্বার মণ্ডল জানান, দোকানগুলোতে বিভিন্ন পণ্যের মূল্য টাঙানো থাকলেও তাতে পেঁয়াজের দাম উল্লেখ নেই। এসব অসঙ্গতির কারণেই দোকানগুলোকে জরিমানা করা হয়েছে।

পেঁয়াজের আড়ত ছাড়াও দই বোরহানির কন্টেইনারের গায়ে লেবেল না থাকা (উৎপাদনের তারিখ, মেয়াদোত্তীর্ণ তারিখ ইত্যাদি না লেখা) এবং বাসি গ্রিল বিক্রয়ের উদ্দেশ্যে সংরক্ষণ করার অপরাধে মতিঝিল এলাকার কয়েকটি রেস্তোরাঁকে ১০ হাজার টাকা করে এবং বিসমিল্লাহ রেস্তোরাঁকে ৩০ হাজার টাকাসহ ৫ প্রতিষ্ঠানকে সর্বমোট ১ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়।

Bellow Post-Green View