চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

পিরিয়ডের কারণে শিক্ষিকার তিরস্কারে ছাত্রীর আত্মহত্যা

পিরিয়ডের (ঋতুস্রাব) কারণে শ্রেণিকক্ষে অপমান করায় কেনিয়ায় এক স্কুলছাত্রী আত্মহত্যা করেছে। রাজধানী নাইরোবির পশ্চিমে কাবিয়ানগেক শহরে এ ঘটনা ঘটে।

১৪ বছর বয়সী ওই ছাত্রীর পরিবারের অভিযোগ, পিরিয়ডের কারণে স্কুলড্রেসে দাগ লাগায় শ্রেণিকক্ষেই একজন শিক্ষিকা তাকে অপমান করেন। অপমান সহ্য করতে না পেরে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করে সে।

বিজ্ঞাপন

বিবিসি জানায়, এ ঘটনায় মঙ্গলবার প্রায় ২০০ জন অভিভাবক স্কুল এলাকায় বিক্ষোভ করেন। পরে পুলিশ তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। পুলিশ এসময় কয়েকজনকে আটকও করে।

ওই ছাত্রীর মা বলেন, স্কুলড্রেস ময়লা করায় শিক্ষিকা তাকে ‘নোংড়া’ বলেন এবং ক্লাস থেকে বের হয়ে যেতে বলেন। এসময় তার কাছে প্যাড হিসেবে ব্যবহার করার মত কিছু ছিল না।

বিজ্ঞাপন

তিনি বলেন, এরপর আমার মেয়ে বাড়ি চলে আসে এবং তার সাথে কী হয়েছে তা আমাকে জানায়। কিন্তু এরপর আমি যখন পানি আনতে বাইরে যাই তখন সে আত্মহত্যা করে।

এ ঘটনায় পুলিশের কাছে অভিযোগ করেছেন ওই ছাত্রীর অভিভাবক। তবে তারা পুলিশের ভূমিকায় হতাশ হয়ে পড়েছেন।

ছাত্রীর আত্মহত্যার ঘটনায় স্কুলের প্রধান শিক্ষক মন্তব্য করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন।

অন্য অনেক দেশের মতো কেনিয়াতেও অনেক মেয়ের স্যানিটারি পণ্য কেনার সামর্থ্য নেই। স্কুলছাত্রীদের স্যানিটারি তোয়ালে সরবরাহের জন্য ২০১৭ সালে দেশটিতে আইন পাস হয়। তবে এখন পর্যন্ত সব স্কুলে কেন তা হচ্ছে তা তদন্ত করছে সংসদীয় কমিটি।

জাতিসংঘের এক রিপোর্ট বলছে উপ-সাহারান আফ্রিকার দেশগুলোতে পিরিয়ডের কারণে প্রতি ১০ জন স্কুলছাত্রীর মধ্যে একজন স্কুল ত্যাগ করছে। পিরিয়ডের কারণে মেয়েরা তাদের পড়াশোনার ২০ শতাংশ থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। একপর্যায়ে অনেকে স্কুলই ছেড়ে দিচ্ছে।

Bellow Post-Green View