চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

পাহাড়ি ঢল ও বৃষ্টির পানিতে ২৪৯ স্কুলের কার্যক্রম বন্ধ

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি: সুনামগঞ্জে পাহাড়ি ঢল ও ভারী বর্ষণে ৮ উপজেলার অন্তত ১৯৯টি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও ৫০টি মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও মাদ্রাসা প্লাবিত হয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠানে সাময়িকভাবে পাঠদান স্থগিত রাখা হয়েছে বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

এছাড়া শতাধিক প্রাথমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন এলাকার রাস্তাঘাট ডুবে যাওয়ায় শিক্ষার্থীদের স্কুলে পাঠাচ্ছেন না অভিভাবকরা। বৃষ্টিপাত বাড়তে থাকলে জেলার অধিকাংশ উপজেলার প্রাথমিক, উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়, মাদ্রাসা ও কলেজে বন্যায় কবিলত হওয়ার আশঙ্কা করছেন সংশ্লিষ্টরা।

বিজ্ঞাপন

তাহিরপুর উপজেলার টাংগুয়ার হাওর সংলগ্ন ছিলাই তাহিরপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক হাদিউজ্জামান জানান, বন্যায় স্কুলে পানি প্রবেশ করেছে। পানি বাড়ার কারণে শিক্ষার্থীরা স্কুলে একবারেই কম আসে। একপ্রকার বন্ধই স্কুল। এছাড়াও পানিতে ডুবে যাওয়া আশপাশের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে।

বড়দল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রফিকুল ইসলাম জানান, আমাদের স্কুল হাওরের মাঝে হওয়ায় স্কুলটি বন্যায় প্লাবিত, তাই পাঠদান বন্ধ রয়েছে।

বিজ্ঞাপন

তাহিরপুর উপজেলা ভারপ্রাপ্ত শিক্ষা অফিসার মোঃ আবু সাঈদ বলেন, পাহাড়ি ঢলের কারণে যেসব বিদ্যালয় শিক্ষার্থী শূন্য হয়ে পড়েছে, সেসব বিষয়ে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারসহ দায়িত্বশীল সব দপ্তরকে অবহিত করা হয়েছে।

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা গেছে, পাহাড়ি ঢল ও বৃষ্টিতে জেলার সদর উপজেলায় ২২টি, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলায় ৩টি, ধর্মপাশা উপজেলায় ৫৯টি, তাহিরপুর উপজেলায় ৩০টি, বিশ্বম্ভরপুর উপজেলায় ২৭টি, দোয়াবাজার উপজেলায় ১৮টি, ছাতক উপজেলায় ১০টি এবং জামালগঞ্জ উপজেলায় ৩০টি বিদ্যালয়ে পানি প্রবেশ করেছে।

এছাড়া জেলার ৬টি উপজেলার অন্তত ৫০টি মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও মাদ্রাসায় বন্যার পানি প্রবেশ করেছে। এসব প্রতিষ্ঠানে বন্যার পানি উন্নতি না হওয়া পর্যন্ত পাঠদান স্থগিত রাখা হয়েছে।

বন্যার পানি বাড়লে আরও বিদ্যালয়ে পানি প্রবেশ করতে পারে বলে আশঙ্কা করেন জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার জিল্লুর রহমান।

Bellow Post-Green View