চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

পারমাণবিক অস্ত্রের সক্ষমতা বাড়াচ্ছে চীন

পারমাণবিক মিসাইল সংরক্ষণ ও উৎক্ষেপণের সক্ষমতা আরও বিস্তৃত করছে চীন।

সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের বিজ্ঞানীরা উপগ্রহ চিত্র বিশ্লেষণ করে এ তথ্য জানিয়েছেন।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

তাদের দাবি, দেশের পশ্চিমের শিনজিয়াং প্রদেশে কৃত্রিম উপগ্রহে তোলা ছবিতে দেখা গেছে, সেখানে পারমাণবিক মিসাইলের ১১০টি উৎক্ষেপণ কেন্দ্র (সাইলো) গড়ে তোলা হচ্ছে। ফেডারেশন অব আমেরিকান সায়েন্টিস্টের(এফএএস) এক রিপোর্টে এই তথ্য দেওয়া হয়।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষা কর্মকর্তা চীনের পারমাণবিক কাযক্রমে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন।

দুই মাস আগে খবরে আসা পশ্চিম চীনের এটি দ্বিতীয় নতুন সাইলো ফিল্ড। ওই সাইটে অন্তত ১১০টি সাইলো থাকবে। সাইলো মূলত মিসাইল সংরক্ষণ ও উৎক্ষেপণের জন্য ব্যবহৃত ভূগর্ভস্থ সুবিধা।

এর আগে গতমাসে ওয়াশিংটন পোস্টের এক খবরে গানসু প্রদেশের ইউমিন মরুভূমি এলাকায় ১২০টি সাইলো স্পটের খবর প্রকাশিত হয়।

বিজ্ঞাপন

এফএএস সোমবার তাদের রিপোর্টে বলেছে, এটি হামিতে একটি নতুন জায়গা। যেটা ইউমিন থেকে ৩৮০ কিলোমিটার উত্তর-পশ্চিমে। তবে কাজটা শুরুর প্রাথমিক পযায়ে রয়েছে।

২০২০ সালে পেন্টাগন বলেছিলো, চীন নীচু অঞ্চল থেকে তার পারমাণবিক যুদ্ধের মজুদ দ্বিগুণ করবে।

যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়ার মধ্যে অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ আলোচনার প্রস্তুতির মধ্যেই এমন খবর এলো। কিন্তু চীন এখনও পর্যন্ত অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ আলোচনায় অংশ নেয়নি।

জিনজিয়াংয়ের সাইলো ক্ষেত্রটি বাণিজ্যিক কৃত্রিম উপগ্রহ চিত্র ব্যবহার করে শনাক্ত করা হয়েছিল, তবে স্যাটেলাইট ইমেজিং সংস্থা প্ল্যানেট পরে উচ্চ-রেজোলিউশনের ছবি সরবরাহ করেছিল।

পেন্টাগন জানিয়েছে, ২০২০ সালে চীনের কাছে ২০০ টিরও বেশি ওয়ারহেডের পরমাণু মজুদ ছিল এবং এই পরিমাণ কমপক্ষে দ্বিগুণ করার লক্ষ্য ছিল তাদের।

তবে বিশ্লেষকরা বলছেন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রেও প্রায় ৩,৮০০ টি ওয়ারহেড রয়েছে।