চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

পাকিস্তানিদের ভিসা প্রদান সাময়িকভাবে বন্ধ রেখেছে বাংলাদেশ

ইসলামাবাদে বাংলাদেশ হাইকমিশন থেকে পাকিস্তানি নাগরিকদের ভিসা দেয়া সাময়িকভাবে বন্ধ রেখেছে বাংলাদেশ। পাকিস্তান থেকে হাইকমিশনের এক কর্মকর্তা বিষয়টি চ্যানেল আই অনলাইনকে নিশ্চিত করেছেন।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে ওই কর্মকর্তা জানান, পাকিস্তানে বাংলাদেশ হাইকমিশনের প্রেস কাউন্সেলর ইকবাল হোসাইন তার ভিসার মেয়াদ বাড়াতে পাকিস্তানে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে আবেদন করেন। পাকিস্তান ভিসার মেয়াদ বাড়াতে দেরি করায় তার প্রতিক্রিয়া হিসেবে বাংলাদেশ জরুরি ভিত্তিতে এ পদক্ষেপ নেয়।

বিজ্ঞাপন

কূটনীতিক ইকবাল হোসাইন গত জানুয়ারি মাসে আবেদনটি করেছিলেন।

ঢাকা-ইসলামাবাদ কূটনৈতিক সূত্রে জানা যায়, বাংলাদেশ হাইকমিশনের ভিসা কাউন্সেলর ২০১৮ সালের ৬ নভেম্বরের পর দায়িত্ব পালন শেষে দেশে ফিরে আসেন। নতুন কর্মকর্তা যোগ না দেয়ায় গত নভেম্বর থেকে সর্বশেষ ১৩ মে পর্যন্ত ইকবাল হোসাইন প্রেস কাউন্সেলরের পাশাপাশি ভারপ্রাপ্ত ভিসা কাউন্সেলরের দায়িত্বও পালন করে আসছিলেন।

বিজ্ঞাপন

চলতি বছরের ৩০ মার্চ ইকবাল হোসাইন দেশে ফেরার কথা ছিল। এর মাঝে ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে যাওয়ায় নিজের ও মেয়ের ভিসার মেয়াদ বাড়াতে গত ৭ জানুয়ারি পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে চিঠি দিয়েছিলেন তিনি।

আবার শেষ মুহূর্তের গোছগাছে সাহায্য করতে বাংলাদেশ থেকে পাকিস্তান যেতে ঢাকায় ইকবাল হোসাইনের স্ত্রী এবং ছেলে পাকিস্তান হাইকমিশনে ভিসার জন্য আবেদন করেন।

কিন্তু জানুয়ারিতে আবেদন জানানোর পর থেকে কয়েক দফা পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে ভিসার মেয়াদ বাড়ানোর অনুরোধ জানিয়ে চিঠি পাঠিয়েও কোনো জবাব পাননি বাংলাদেশের প্রেস কাউন্সেলর। ভিসার মেয়াদ আদৌ বাড়ানো হবে কিনা, সে বিষয়েও কিছু জানানো হয়নি তাকে। অন্যদিকে ভিসার জন্য পরপর তিনবার পাকিস্তান হাইকমিশনে দাঁড়িয়েও খালি হাতে ফিরতে হয়েছে তার স্ত্রী-পুত্রকে।

বাংলাদেশ হাইকমিশনের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই কর্মকর্তা জানান, এই অনিশ্চয়তার কারণে ইকবাল হোসাইন গত ১৩ মে হাইকমিশনার তারিক হাসানকে জানিয়ে দেন, তার পক্ষে ভারপ্রাপ্ত ভিসা কাউন্সেলরের দায়িত্ব পালন করা আর সম্ভব নয়।

উদ্ভূত পরিস্থিতিতে তখন ইসলামাবাদে বাংলাদেশ হাইকমিশন অনানুষ্ঠানিকভাবে ১৩ মে থেকে পাকিস্তানের নাগরিকদের জন্য বাংলাদেশি ভিসা ইস্যু করা সাময়িকভাবে বন্ধ রেখেছে।