চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

‘পলাশী বাঙালি জাতির জন্য স্বাধীনতার প্রেরণা’

‘১৯৩৮ থেকে আজ অবধি পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশে নবাব সিরাজউদ্দৌলা ও পলাশী সম্বন্ধে নানা আলোচনা, সভা-সমিতি, সিরাজ স্মারক গ্রন্থ প্রকাশ করা হয়েছে এবং নানা প্রতিষ্ঠানও গড়ে উঠেছে। তিনি আমাদের স্বাধীনতার প্রতীক, তিনি আমাদের শৌর্য–বীর্যের প্রতীক, তিনি আমাদের কাছে প্রেরণা।’

পলাশী দিবস উপলক্ষে বাংলাদেশ ইতিহাস অলিম্পিয়াড জাতীয় কমিটি অনলাইনে ‘ইতিহাসের আলোকে ফিরে দেখা’ শীর্ষক আলোচনা অনুষ্ঠানে ভারতের কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের অধ্যাপক কাজী সুফিউর রহমান এসব কথা বলেন।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

কাজী সুফিউর রহমান আরও বলেন, পলাশী বাঙালিদের কাছে বিবেকের তাড়না, চৈতন্যের উদয়। আমাদের রক্তে পলাশী। আমরা সাহিত্য রচনা করতে গেলেও পলাশী থেকেই শুরু করি, ইতিহাস রচনা করতে গেলেও এই পলাশী থেকেই শুরু করি। সুতরাং পলাশী হচ্ছে আমাদের কাছে একটা কেন্দ্র, আমরা প্রতিদিন ওখানে গিয়েই স্পর্শ করি।

বিজ্ঞাপন

আলোচনার শুরুতে অনুষ্ঠানটি সঞ্চালক বাংলাদেশ ইতিহাস অলিম্পিয়াড জাতীয় কমিটি সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের অধ্যাপক এমরান জাহান বলেন, গত বছর পলাশী দিবসকে কেন্দ্রকে করে আমরা চার দিনব্যাপী আন্তর্জাতিক ইতিহাস-সংস্কৃতি সম্মেলন আয়োজন করি।  তারই ধারাবাহিতায় এবারের আমাদের আয়োজন “ইতিহাসের আলোকে ফিরে দেখা” শীর্ষক আলোচনা অনুষ্ঠান।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের অধ্যাপক মোহাম্মদ ছিদ্দিকুর রহমান খান বলেন, পলাশী প্রহসনমূলক যুদ্ধ। সামরিক ইতিহাসে ঠাঁই পাওয়ার মতো যুদ্ধ নয় এটি। কিন্তু এর তাৎপর্য অত্যন্ত সুদূরপ্রসারী। বিশ্ব ইতিহাসেও তাৎপর্যপূর্ণ ঘটনা। পলাশীর যে যুদ্ধ, তা ছিল একটি ষড়যন্ত্রের বহিঃপ্রকাশ এবং তা ছিল রাজকীয় ষড়যন্ত্র, যার সঙ্গে জড়িত ছিল এ দেশের অভিজাত চক্র।

ইমেরিটাস অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরীর উদ্ধৃতি দিয়ে মোহাম্মদ ছিদ্দিকুর রহমান খান বলেন, এটি একটি যুদ্ধ, নাকি প্রহসন, সে বিষয়ে বিতর্ক আছে। এই বিতর্ক চলমান এবং এর তাৎপর্য উজ্জীবিত। এই বিতর্কের এখনো নিষ্পত্তি হয়নি। তিনি ইতিহাসের খলনায়ক তো ননই, বরং তিনি ইতিহাসের মহানায়ক।

ঘণ্টাব্যাপী এই অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন বাংলাদেশ ইতিহাস অলিম্পিয়াড জাতীয় কমিটি সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য এমরান জাহান। অনুষ্ঠানটি বাংলাদেশ ইতিহাস অলিম্পিয়াডের ফেসবুক পেজ ও ইউটিউবে সরাসরি প্রচারিত হয়।