চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

পরীক্ষায় নকল ঠেকানোর উদ্ভট চেষ্টা

পরীক্ষায় নকল ঠেকাতে উদ্ভট এক কৌশল অনুসরণ করে সমালোচনার মুখোমুখি হয়েছে ভারতের কর্নাটকের একটি কলেজ।

পরীক্ষা চলাকালীন সময়ে পরীক্ষার্থীদের মাথায় পরানো হয়েছে অদ্ভুত ধরনের কাগজের তৈরি কার্টন।

বিজ্ঞাপন

বেঙ্গালুরু থেকে প্রায় ৩৩০ কিলোমিটার দূরবর্তী হাভেরির ভগত প্রি-ইউনিভার্সিটি কলেজের শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা চলাকালীন সময়কার কিছু ছবি সামাজিক মাধ্যমে ভাইরাল হয়।

ছবিতে দেখা যায়, পরীক্ষার হলে কাগজের তৈরি কার্টন মাথায় বসে পরীক্ষা দিচ্ছে শিক্ষার্থীরা। মিডটার্ম পরীক্ষার বসে ছিলো তারা। হলে পরিদর্শকরাও এসময় তদারকি করছিলেন।

এমন উদ্ভট কাণ্ডকীর্তির জন্য ওই প্রতিষ্ঠানটি অনেক প্রশ্ন ও সমালোচনার মুখোমুখি হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

শুক্রবার কর্নাটকের শিক্ষামন্ত্রী এস সুরেশ কুমার সাংবাদিকদের বলেছেন, এমন ঘটনা পুরোপুরি অগ্রণযোগ্য। শিক্ষার্থীদের সঙ্গে এভাবে প্রাণীদের মতো আচরণ করার অধিকার কারো নেই।
‘এমন বিকৃতি আচরণের যথাযথভাবে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে’-অপর এক টুইটে বলেন শিক্ষামন্ত্রী।

সামাজিক মাধ্যমে অনেকে শিক্ষামন্ত্রীর মন্তব্যের সমর্থন দিয়ে লিখেছেন, এটি শিক্ষার্থীদের জন্য হাস্যকর এবং অবমানকর আচরণ। হ্যাঁ, পরীক্ষায় নকল বা প্রতারণা একটি সমস্যা। তবে এটি কোনো সমাধানের উপায় হতে পারে না। যে বা যারা এটিকে অনুমোদন করেছে তাদের তিরস্কার করা উচিত’।

তবে এই ঘটনাকে ন্যায়সঙ্গত করতে কলেজেন প্রধান এমবি সতীশ সাংবাদিকদের বলেন, বিহারের একটি কলেজে এই পদ্ধতি ব্যবহার করে এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সেটি ব্যাপক প্রশংসিত হয়।

তিনি বলেন, আমরা শিক্ষার্থীদের ভালোর জন্য এমনটি করার চেষ্টা করেছি। আমরা চাই না যে, পরীক্ষার সময় শিক্ষার্থীদের মানসিকতা অন্যদিকে চলে যাক। কার্টনগুলো সামনের দিকে উন্মুক্ত ছিলো। এটি ছিলো আমাদের নতুন পরীক্ষা। আমরা ইতিবাচক এবং নেতিবাচক উভয় প্রতিক্রিয়া পেয়েছি।

এনডিটিভিকে কর্নাটকের উপ-পরিদর্শক জানায়, ১৬ অক্টোবর যে অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটেছিলো তা তদন্তের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তিনি আরো বলেন, পরীক্ষা চলাকালীন সময়ে আমি কলেজটিতে গিয়েছিলাম এবং আমি তাদের সেই কার্টনগুলো মাথা থেকে সরাতে বাধ্য করেছিলাম। এসময় কলেজে নোটিশও করেছি এবং তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছি। এই বিষয়ে তদন্ত শেষ হলেই আমরা ব্যবস্থা গ্রহণ করবো। এছাড়া আমরা কলেজ কর্তৃপক্ষের দেওয়া এধরনের নির্দেশনা অনুসরণ না করা করার জন্য শিক্ষার্থীদের বলে দিয়েছি’- এমনটাই জানান এসআই পরীজাদা।

Bellow Post-Green View