চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

নিষেধাজ্ঞার কারণে প্রিয় শিষ্যকেও আনতে পারবেন না কোম্যান

নিবন্ধিত হননি, মৌসুমের প্রথম ম্যাচে বার্সেলোনার ডাগআউটে বসা হবে না রোনাল্ড কোম্যানের। আরেকটা খারাপ খবর আছে, লা লিগার নিষেধাজ্ঞার কারণে লিভারপুল থেকে প্রিয় শিষ্য জর্জিনিয়ো উইনালডামকেও পাচ্ছেন না ডাচ কোচ।

কিকে সেতিয়েনের ছাঁটাইয়ের পর নতুন করে বার্সাকে গড়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে কোচ হন কোম্যান। কেমন খেলোয়াড় দলে চান সেটাও এরইমধ্যে বোর্ডকে জানিয়ে দিয়েছেন। নেদারল্যান্ডস জাতীয় দলের মেম্ফিস ডিপাই আর উইনালডামকে তার বিশেষ পছন্দ, পরিষ্কার করেই জানিয়ে দিয়েছেন।

বিজ্ঞাপন

পছন্দের খেলোয়াড়দের আনতে গিয়ে অভিজ্ঞ লুইস সুয়ারেজ ও বার্সার ভবিষ্যৎ বলে যাকে ভাবা হচ্ছিল, সেই রিকি পুইককেও ক্লাব ছাড়ার রাস্তা দেখিয়ে দিয়েছেন কোম্যান।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

কোম্যানের কপাল খারাপ, তাকে খেলোয়াড় কিনতে আপাতত নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে স্বয়ং লা লিগা। স্প্যানিশ লিগ কর্তৃপক্ষ জানাচ্ছে, বার্সার অর্থনৈতিক অবস্থা ঠিক স্থিতিশীল নয়, খেলোয়াড় কেনা-বেচা করে তারা এমন কোনো লাভও দেখাতে পারেনি যার বিপরীতে তারা খেলোয়াড় কিনতে পারে।

করোনা মহামারীর কারণে এমনিতেই বেশ ক্ষতি হয়েছে বার্সেলোনার। আনুমানিক লোকসানের পরিমাণ ৩০০ মিলিয়ন ইউরো। আগে ফ্রেঙ্কি ডি ইয়ং, ফিলিপে কৌতিনহো, উসমানে ডেম্বেলে আর অ্যান্টনিও গ্রিজম্যানকে কিনতে দুহাতে অর্থ খরচ করার ধাক্কা তো আছেই।

বছরে ৫১০ মিলিয়ন পাউন্ড খরচ করাও বার্সার আরেক বোঝা। খেলোয়াড়দের দুহাতে বেতন দিতে গিয়ে বার্সার আর্থিক অবস্থায় এখন বেশ নড়বড়ে।

নতুন খেলোয়াড় কিনতে হলে অবশ্যই কয়েকজন খেলোয়াড়কে বিক্রি করতে হবে বার্সাকে। লা লিগা স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছে, বড় ক্লাবগুলোকে অবশ্যই গত পাঁচ বছরের সমস্ত আর্থিক হিসাব উপস্থাপন করতে হবে। অবস্থা অনুকূলে হলেই কেবল খেলোয়াড় কিনতে পারবে বার্সা।