চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

নিভৃতে চলে গেলেন জাবি ছাত্র নিভৃত

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের ৪৫তম ব্যাচের ছাত্র নুরুজ্জামান নিভৃত (২২) হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন।

শনিবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়লে বন্ধুরা তাকে এনাম মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে নিয়ে যান। তবে এর আগেই নিভৃত শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেছেন বলে জানান হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক।

তার মৃত্যুতে পুরো ক্যাম্পাস জুড়ে শোকের ছায়া নেমে আসে। তাঁর আকস্মিক মৃত্যুতে শোক ও সমবেদনা প্রকাশ করছেন সহপাঠীসহ ক্যাম্পাসের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা।

কিন্তু নিভৃতের সহপাঠী ও শিক্ষার্থীদের অভিযোগ বিশ্ববিদ্যালয় মেডিকেল সেন্টারের কর্তৃপক্ষ যথাসময়ে অ্যাম্বুলেন্স দিতে ব্যর্থ হওয়ায় চিকিৎসার অভাবে নিভৃতের মৃত্যু ঘটেছে। তিন ঘণ্টা পর অ্যাম্বুল্যান্সে করে সাভার এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের উদ্দেশ্যে নেওয়া হলে অ্যাম্বুলেন্সেই নিভৃত মারা যায়।

তবে চিকিৎসাকেন্দ্রের পরিচালক এ অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, নিভৃতের চিকিৎসার ক্ষেত্রে দায়িত্বে কোন গাফিলাতি করা হয় নি। অ্যাম্বুলেন্সেরও কোন সমস্যা ছিল না। সাথে তেমন কেউ না থাকায় প্রথমে নিভৃত নিজেই সাভার এনাম মেডিকেলে যেতে চায়নি।

বিশ্ববিদ্যালয় চিকিৎসা কেন্দ্র ও সহপাঠী সূত্রে জানা যায়, গতকাল সন্ধ্যার পর ইংরেজি বিভাগের এই মেধাবী শিক্ষার্থী শ্বাস কষ্ট জনিত কারণে অসুস্থ হয়ে পড়ে। পরে শ্বাসকষ্টের চিকিৎসা নিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিকেল সেন্টারে যায়। সেখানে দীর্ঘক্ষণ পর অবস্থার অবনতি হতে থাকলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে সাভারের এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়। অ্যাম্বুল্যান্সে করে মেডিকেল কলেজে যাওয়ার সময় পথিমধ্যে তার মৃত্যু ঘটে।

এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের দায়িত্বরত চিকিৎসক ডা. হরনাথ সরকার বলেন, শ্বাসকষ্ট থেকে হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে যায়। ফলে একসময় নুরুজ্জামান মেসিভ হার্ট অ্যাটাকে মারা যায়।

চিকিৎসার অবহেলায় নিভৃতের মৃত্যুর ঘটনায় ক্যাম্পাস জুড়ে ক্ষোভের সৃষ্টি করেছে। ডাক্তারদের অবহেলার প্রতিবাদে এবং জাবি মেডিকেল সকলপ্রকার সুযোগ সুবিধা বৃদ্ধি সহ উন্নত মেডিকেল সেবা ব্যবস্থার জন্য আগামীকাল রোববার সকাল ১১টায় শহীদ মিনারে মানববন্ধনের ডাক দিয়েছে শিক্ষার্থীরা।

মানববন্ধন শেষে মেডিকেল সেন্টার অভিমুখে যাত্রা করে ডাক্তারদের অবহেলার জবাব চাওয়া হবে বলে জানিয়েছেন মানবন্ধন আহবানকারীরা।

এদিকে নুরুজ্জামানের অকাল মৃত্যুর কারণে বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন কলা ভবনের নববর্ষ ও পহেলা বৈশাখ বরণের সকল অনুষ্ঠান স্থগিত করা হয়েছে।

অন্যদিকে শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের মঙ্গল শোভাযাত্রাসহ সকল অনুষ্ঠান স্থগিতের দাবি জানিয়েছে। শিক্ষার্থীরা বলছেন, শোক আর শোভাযাত্রা একসাথে চলতে পারেনা।