চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

নিখোঁজ উড়োজাহাজটি সমুদ্রে বিধ্বস্ত?

উড্ডয়নের কয়েক মিনিটের মধ্যে নিখোঁজ হয়ে যাওয়া ইন্দোনেশিয়ার শ্রীবিজায়া এয়ারলাইন্সের উড়োজাহাজটি জাকার্তার কাছাকাছি সমুদ্রে বিধ্বস্ত হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

স্থানীয় প্রত্যক্ষদর্শী এবং আরও কয়েকটি সূত্রের বরাতে এমন প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে সংবাদ মাধ্যম সিনহুয়া ও বিবিসি।

তবে রাষ্ট্রীয়ভাবে বিষয়টি এখনো নিশ্চিত করা হয়নি। ইন্দোনেশিয়া সরকারের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, বিমানটি উদ্ধারে অনুসন্ধান চালছে।

চীনের রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা সিনহুয়া স্থানীয় এক টেলিভিশন চ্যানেলের বরাতে বলছে, যাত্রীবাহী উড়োজাহাজটি সমুদ্রের পানিতে বিধ্বস্ত হয়েছে। জাকার্তা থেকে ওই স্থান খুব বেশি দূরে নয়।

সংবাদে আরও বলা হয়, উপকূলবর্তী একটি জাহাজের ক্যাপ্টেন ওই  বিমানের মরদেহ ও ধ্বংসাবেশষ দেখতে পেয়েছেন।

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়, স্থানীয় প্রত্যক্ষদর্শীরা বিস্ফোরণের শব্দ শুনেছেন ও দেখেছেন।

বিজ্ঞাপন

সোলিহিন নামের একজন মৎস্যজীবী বিবিসিকে জানিয়েছেন, ‘এটি দুর্ঘটনার কবলে পড়েছে। তার মতে, সেটা ছিল উড়োজাহাজ বিধ্বস্তের ঘটনা।

‘উড়োজাহাজটি বজ্রপাতের মতো পড়ে গেলো এবং বিস্ফোরিত হলো। এটি আমাদের খুব নিকটে ছিল। এক ধরনের কাঁচের টুকরা আমাদের জাহাজে প্রায় আঘাত করেছিলো’-বলছিলেন সোলিহিন।

উড়োজাহাজটি নিঁখোজ হয়ে যাওয়া কাছাকাছি একটি দ্বীপের অনেক বাসিন্দা বিবিসিকে বলেছেন, তারা বিধ্বস্ত উড়োজাহাজের টুকরার মতো কিছু দেখতে পেয়েছিলেন।

শনিবার স্থানীয় সময় দুপুর আড়াইটায় শ্রীবিজয়া এয়ারলাইন্সের বোয়িং ৭৩৭ উড়োজাহাজ দেশটির পশ্চিম কালিমান্তান প্রদেশের পনতিয়ানাকে যাওয়ার পথে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়।

উড়োজাহাজের গতিবিধি পর্যবেক্ষণকারী ওয়েবসাইট ফ্লাইটরাডার টুয়েন্টিফোর ডটকম জানিয়েছে, জাকার্তা থেকে উড্ডয়নের ৪ মিনিট পর উড়োজাহাজটি ১০ হাজার ফুটের বেশি উচ্চতায় অবস্থান করছিল। সেখান থেকে হঠাৎ করেই তা রাডার থেকে হারিয়ে যায়।

বিবিসির মতে, ওই উড়োজাহাজে শিশু ও ক্রুসহ মোট ৬২ জন আরোহী ছিল। তার ধারণ ক্ষমতা ১৩২ জন।

বিজ্ঞাপন