চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

নিঃশর্ত ক্ষমা চাইলেন ড. ইউনূস

আদালত অবমাননার অভিযোগ

আদালতের কোনো আদেশ প্রতিপালন না হয়ে থাকলে- তা অনিচ্ছাকৃত উল্লেখ করে আদালত অবমাননার অভিযোগে নিঃশর্ত ক্ষমা চেয়েছেন গ্রামীণ টেলিকমের চেয়ারম্যান নোবেল জয়ী অর্থনীতিবিদ ড. মুহাম্মদ ইউনূস এবং প্রতিষ্ঠানটির এমডি আশরাফুল হাসান।

পরে তাদের দু’জনকে ব্যক্তিগত হাজিরা থেকে অব্যাহতি দিয়েছেন হাইকোর্ট।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

আদালতের আদেশে মঙ্গলবার বিচারপতি মো. মজিবুর রহমান মিয়া ও বিচারপতি মো. কামরুল হোসেন মোল্লার ভার্চুয়াল হাইকোর্ট বেঞ্চে তারা দুজন যুক্ত হন।

পরে তাদের দু’জনের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার রোকন উদ্দিন মাহমুদ। তার সাথে ছিলেন ব্যারিস্টার মোস্তাফিজুর রহমান খান। সেসময় ড. মুহাম্মদ ইউনূস ও আশরাফুল হাসানের পক্ষে লিখিত ব্যাখ্যা আদালতে দাখিল করা হয়।

যেখানে বলা হয়েছে, ‘আদালতের আদেশ বাস্তবায়ন করা হয়েছে। তবে কোন আদেশ প্রতিপালন না হয়ে থাকলে তবে তা অনিচ্ছাকৃত। সেক্ষেত্রে আদালত অবমাননার অভিযোগ থেকে নিঃশর্ত ক্ষমা প্রার্থনা করছি।’

বিজ্ঞাপন

শুনানির এক পর্যায়ে অপর পক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট ইউসুফ আলী ড. মুহাম্মদ ইউনূস ও আশরাফুল হাসানের পক্ষে দেয়া লিখিত ব্যাখ্যা সঠিক নয় দাবি করেন।

এরপর আদালত ড. মুহাম্মদ ইউনূস ও গ্রামীণ টেলিকমের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আশরাফুল হাসানকে ব্যক্তিগত হাজিরা থেকে অব্যাহতি দিয়ে এ বিষয়ে পরবর্তী শুনানির জন্য আগামী ২২ এপ্রিল দিন ধার্য করেন।

এর আগে গ্রামীণ টেলিকমের ৩৮ কর্মীর বিষয়ে আদেশ বাস্তবায়ন না করার অভিযোগে প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান নোবেল জয়ী অর্থনীতিবিদ ড. মুহাম্মদ ইউনূস ও প্রতিষ্ঠানটির এমডি আশরাফুল হাসানকে তলব করেন হাইকোর্ট।

গ্রামীণ টেলিকমের শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি মো. কামারুজ্জামানের করা আদালত অবমাননার আবেদনে শুনানি নিয়ে গত ১৮ ফেব্রুয়ারী হাইকোর্ট এই তলব আদেশ দেন এবং ১৬ মার্চ এদের দু’জনকে ভার্চুয়াল হাইকোর্ট বেঞ্চে যুক্ত হয়ে এ বিষয়ে ব্যাখ্যা দিতে বলা হয়।

এছাড়াও ড. মুহাম্মদ ইউনূস ও আশরাফুল হাসানের প্রতি ওইদিন হাইকোর্ট অবমাননার রুলও জারি করা হয়।