চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

নারী সাংবাদিকদের বাধাবিপত্তি দ্বিগুণ

সেন্ট্রাল উইমেন্স ইউনিভার্সিটি আয়োজিত ওয়েবিনারে বক্তারা

সাংবাদিকতা পেশা হিসেবেই চ্যালেঞ্জিং।  নারীদের জন্য এ পেশায়ও বাধাবিপত্তি ‘দ্বিগুণ’। তবে গত দুই দশকে পরিস্থিতি বদলাচ্ছে। তাই সাংবাদিক আইরীন নিয়াজী মান্নার আশা, একদিন কাঙ্ক্ষিত পরিবর্তন আসবেই।

সেন্ট্রাল উইমেন্স ইউনিভার্সিটির (সিডব্লিউইউ) জার্নালিজম অ্যান্ড মিডিয়া স্টাডিজ বিভাগ আয়োজিত এক ওয়েবিনারে মুখ্য বক্তা হিসেবে আলোচনাকালে তিনি এ কথা বলেন।

বিজ্ঞাপন

স্বাগত বক্তব্যে সিডব্লিউইউ উপাচার্য পারভীন হাসান বলেন, নারীদের জন্য চ্যালেঞ্জ তো এখন সব জায়গায়। আর যেখানে চ্যালেঞ্জ আছে, বুঝতে হবে সেখানে সম্ভাবনাও অনেক। সম্ভাবনার দ্বারগুলো খুলে দিতে হবে।

বাংলাদেশে নারী আন্দোলনের অন্যতম পুরোধা ব্যক্তিত্ব এবং সিডব্লিউইউ’র সোশিওলজি অ্যান্ড জেন্ডার স্টাডিজ বিভাগের চেয়ারপারসন ড. মালেকা বেগম বলেন, আমাদের যে পরিবেশ- পারিবারিক পরিবেশের পাশাপাশি সামাজিক যে পরিবেশ- সে কারণেই নারীদের শুধু সাংবাদিকতা নয়, সব প্রাতিষ্ঠানিক কাজে সমস্যায় পড়তে হয়।

সিডব্লিউইউ’র জার্নালিজম অ্যান্ড মিডিয়া স্টাডিজ বিভাগের সহকারী অধ্যাপক এবং চেয়ারপারসন সজীব সরকার বলেন, পরিবারে পুরুষকে সমান দায়িত্ব নিতে হবে; সাংবাদিকদের ঐক্যবদ্ধ হতে হবে, গণমাধ্যম-মালিকদেরও কর্তব্য পালনে শতভাগ ন্যায় হতে হবে। নজরদারি থাকতে হবে সরকারের তরফেও।

বিজ্ঞাপন

সিডব্লিউইউ’র রেজিস্ট্রার ইলিয়াস আহমেদ বলেন, বাংলাদেশে চিকিৎসা পেশায় নারীদের অংশগ্রহণকে পরিবার থেকেই উৎসাহিত করা হয়, যেখানে নিরাপত্তার প্রশ্নে দিন-রাতের বিতর্ক নেই বললেই চলে। কিন্তু সাংবাদিকতা পেশায় নারীদের ব্যাপারে পরিবারগুলোর আপত্তির কারণ কী? একটি গবেষণাপ্রবন্ধের সূত্রে তিনি বলেন, এ পেশায় যৌন হয়রানির ঘটনা ‘বেশি মাত্রা’য় রয়েছে বলেই হয়তো এমন আপত্তি।

সিডব্লিউইউ’র বিজনেস স্টাডিজ বিভাগের চেয়ারপারসন অধ্যাপক হাসান শিরাজী মনে করেন, অনলাইন পত্রিকায় বিজ্ঞাপনদাতাদের অনাস্থা কাটিয়ে ওঠার জন্য বিশ্বাসযোগ্যতা বাড়াতে হবে। আর এভাবে অনলাইন মিডিয়াসহ সব গণমাধ্যমে বিজ্ঞাপন নিশ্চিত করতে পারলে নারীদের চাকরির স্থায়িত্ব বাড়বে।

সাংবাদিকতায় প্রযুক্তি কীভাবে নারীদের জন্য সম্ভাবনাময় হয়ে উঠতে পারে, কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের চেয়ারপারসন অধ্যাপক শাহনাজ পারভীন সে বিষয়ে আলোকপাত করেন।  তিনি বলেন, প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে নারীদের সংবাদিকদের নিরাপত্তা বাড়ানো সম্ভব। নতুন প্রযুক্তিতে কাজে লাগিয়ে নারীরা সাংবাদিকতায় আরও এগিয়ে যেতে পারবে।

এ সময় পেশাগত চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় প্রযুক্তিতে দক্ষ হওয়ার ব্যাপারে গুরুত্ব আরোপ করেন জার্নালিজম অ্যান্ড মিডিয়া স্টাডিজ (জেএমএস) বিভাগের শিক্ষক হাসিনুস সাবাহ।

দৈনিক আমাদের সময়ের সাংবাদিক জাহাঙ্গীর সুর মনে করেন, সমাজের যে পুরুষতান্ত্রিক দৃষ্টিভঙ্গি, সেটা বদলানোই বেশি জরুরি। ওয়েবিনারে দৈনিক আমাদের সময়ের আরেক সাংবাদিক মাজেদুল হক তানভীর নারীদের জন্য অনলাইন মাধ্যমে কাজের সুবিধার কথা তুলে ধরেন।

শনিবার সন্ধ্যায় ‘সাংবাদিকতায় নারীদের চ্যালেঞ্জ ও সম্ভাবনা: প্রেক্ষাপট বাংলাদেশ’ শিরোনামের অনলাইন সেমিনারটি সিডব্লিউইউ এবং দীপ্ত টিভির ফেসবুক পেজে সরাসরি সম্প্রচার করা হয়।