চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

নাগালে পেয়েও নিউজিল্যান্ডকে হারাতে পারল না সালমারা

প্রথমে সালমা-রিতু-রুমানার আগুনঝরা বোলিং, প্রতিপক্ষ একশর নিচে অলআউট, সুযোগের দারুণ মঞ্চই গড়েছিল বাংলাদেশ। কিন্তু নিউজিল্যান্ড বোলারদের সামনে ব্যাটারদের অসহায় আত্মসমর্পণে লেখা হল না ইতিহাস। মেয়েদের টি-টুয়েন্টি বিশ্বকাপে কিউইদের কাছে ১৭ রানে হেরে গেছে টিম টাইগ্রেস।

মেলবোর্নে শনিবার ভোরে শুরু ম্যাচে নিউজিল্যান্ডকে একশর আগেই অলআউট করে দেয় টিম টাইগ্রেস। পুরো ২০ ওভারও ব্যাটিং করতে দেয়নি শক্তিশালী দলটিকে। ১৮.২ ওভারে গুটিয়ে দেয় ৯১ রানে।

বিজ্ঞাপন

অস্ট্রেলিয়ায় বসা আসরে ভারত ও স্বাগতিকদের কাছে আগের দুম্যাচে হারা বাংলাদেশের জবাব দিতে নেমে ব্যাটিংটা আত্মবিশ্বাসী হয়নি। শুরু থেকেই উইকেট হারানোর পাশাপাশি ধীরগতির ব্যাটিংয়ে প্রয়োজনীয় রানরেটের চাপ বাড়তে থাকে। এক বল আগেই গুটিয়ে যাওয়ার সময় যেতে পারে কেবল ৭৪ রান পর্যন্ত।

লক্ষ্য তাড়ায় নেমে বাংলাদেশের কেবল তিন ব্যাটার দুঅঙ্ক ছুঁতে পেরেছেন। মুর্শিদা খাতুন ১১ ও রিতু মণি ১০। বাকিদের মধ্যে আহত অবসরে যাওয়া নিগার সুলতানা ফিরে ২৬ বলে ২১ করেছেন।

আয়েশা রহমান ১, ফারজানা শূন্য, রুমানা আহমেদ ২, ফাহিমা খাতুন ৬, সোবহানা মুস্তারি ৭, জাহানারা আলম শূন্য, সালমা খাতুন ৪ রানে ফিরে যান নামের প্রতি সুবিচার না করে।

বিজ্ঞাপন

এর আগে ৪১ বলে ৩৬ রানের উদ্বোধনী জুটি গড়া কিউইদের প্রথম ধাক্কাটা দেন সালমা খাতুন। বাংলাদেশ অধিনায়কের ডানহাতি অফস্পিনে ফাহিমাকে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন ১৫ বলে ১২ করা কিউই অধিনায়ক সোফি ডিভাইন। সেটি ছিল সপ্তম ওভারের পঞ্চম বল।

এক ওভার পরে নিজের দ্বিতীয় ওভার করতে এসে প্রথম বলেই আরেক ওপেনারকে এলবিডব্লিউয়ের ফাঁদে ফেলেন সালমা। ফিরতে হয় ৩২ বলে ২৫ করা রাচেল প্রিস্টকে।

পরে আর কোনো কিউই ব্যাটারকেই দাঁড়াতে দেয়নি বাংলাদেশ। রিতু মণি ও রুমানা আহমেদ আক্রমণে ঝড় তুললে বাকিদের মাত্র দুজন নিউজিল্যান্ড ব্যাটার যেতে পেরেছে দুঅঙ্কে। সুজি বেটিস ১৫ ও ম্যাডি গ্রিন ১১। বাকিদের মধ্যে সর্বোচ্চ ইনিংসটি কেটি মার্টিনের ৬ রান।

একটি রানআউট বাদে কিউইদের বাকি নয় উইকেট ভাগাভাগি করে নিয়েছেন বাংলাদেশের তিন বোলার। অফস্পিনার সালমা করেছেন সবচেয়ে কিপ্টে বোলিং। ২.২ ওভারে মাত্র ৩ রানে নিয়েছেন ৩ উইকেট।

সবচেয়ে বেশি উইকেট শিকার রিতু মণির। ৪ উইকেট নিয়েছেন ডানহাতি মিডিয়াম পেসার, ৪ ওভারে খরচ করেছেন ১৮ রান। টি-টুয়েন্টি বিশ্বকাপে সব আসর মিলিয়ে কোনো টাইগ্রেস বোলারের এটিই প্রথম ৪ উইকেট প্রাপ্তি।

রিতুর চেয়ে একরান কম খরচ করে লেগস্পিনার রুমানা আহমেদের ঝুলিতে গেছে ২ উইকেট। ৪ ওভারে ১৭ রান খরচ দেশসেরা অলরাউন্ডারের স্পিনে।