চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

নাগালেই থাকল বাংলাদেশের লক্ষ্য

দারুণ শুরুর পরও বাংলাদেশের বিপক্ষে বড় সংগ্রহ পায়নি ওয়েস্ট ইন্ডিজ। স্লগ ওভারে মাশরাফী বিন মোর্ত্তজার অসাধারণ বোলিংয়ে ঘুরে দাঁড়িয়ে নাগালেই রাখা গেছে জয়ের লক্ষ্য। ত্রিদেশীয় সিরিজে নিজেদের প্রথম ম্যাচে উইন্ডিজকে হারাতে হলে টাইগারদের করতে হবে ২৬২ রান।

ডাবলিনের ক্লনটার্ফ ক্রিকেট ক্লাব গ্রাউন্ডে টস জিতে ব্যাটিংয়ে নেমে ৫০ ওভারে ৯ উইকেট হারিয়ে ২৬১ রান তুলেছে জেসন হোল্ডারের দল।

বিজ্ঞাপন

আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে ত্রিদেশীয় সিরিজের উদ্বোধনী ম্যাচে ১৭০ রানের অনবদ্য ইনিংস খেলা শাই হোপ টাইগারদের বিপক্ষে করেছেন ১০৯। একই মাঠে টানা দ্বিতীয় সেঞ্চুরির কীর্তি গড়ে এ ডানহাতি ব্যাটসম্যান আউট হন মাশরাফী বলে।

উইকেটের খোঁজে বাংলাদেশ পেসারদের নাভিশ্বাস ছুটে যায় শাই হোপ ও সুনিল আমব্রিসের ধৈর্যশীল ব্যাটিংয়ে। ওপেনিং জুটি যখন শতরান ছোঁয়ার কাছে, তখন অফস্পিনার মেহেদী হাসান মিরাজ আমব্রিসকে (৩৮) ফিরিয়ে দেন প্রথম সাফল্য। ওপেনিং জুটিতে আসে ৮৯ রান। পরের ওভারেই সাকিব আল হাসান ড্যারেন ব্রাভোকে (১) সাজঘরে পাঠালে স্বস্তি মেলে টাইগার শিবিরে।

বিজ্ঞাপন

১ রানের ব্যবধানে দুই উইকেট তুলে বাংলাদেশ স্পিনাররা যে স্বস্তি এনে দিয়েছিলেন, তা মিলিয়ে যেতে শুরু করে রোস্টন চেজ ও হোপের প্রতিরোধে। শতরান পাড়ি দিয়ে জুটিটি ভাঙে ১০২ রান যোগ করে।

ভয়ঙ্কর হতে থাকা জুটি তৃতীয় উইকেট জুটি ভাঙেন মাশরাফী। ফিফটি করে চেজ (৫১) সাজঘরে ফিরতেই বাংলাদেশ অধিনায়ক পরের ওভারে সাজঘরের পথ দেখান হোপকে। তিনশতে চোখ রেখে আগাতে থাকা ক্যারিবীয়রা পরে আর সুবিধা করতে পারেননি। মোস্তাফিজ ও সাইফউদ্দিন দুটি করে উইকেট তুলে নিলে টেল বেরিয়ে পড়ে তাদের।

মাশরাফী তিনটি, সাইফউদ্দিন ও মোস্তাফিজ নিয়েছেন দুটি করে উইকেট। একটি করে উইকেট নিয়েছেন সাকিব ও মিরাজ।

সাকিব ১০ ওভারে দিয়েছেন ৩৩, মিরাজ দিয়েছেন ৩৮ রান। পেসারদের মধ্যে সবচেয়ে খরুচে ছিলেন মোস্তাফিজ। এ বাঁহাতি কোটা শেষ করে দিয়েছেন ৮৪। মাশরাফী ৪৯ ও সাইফউদ্দিন দিয়েছেন ৪৭ রান করে। মূল পাঁচ বোলারকে দিয়েই ৫০ ওভার শেষ করেছেন অধিনায়ক।

Bellow Post-Green View