চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

নকআউটে লিভারপুল, সঙ্গী চেলসিও

কিছুটা শঙ্কা নিয়েই অস্ট্রিয়ায় পা রেখেছিল লিভারপুল। তবে সব শঙ্কা উড়িয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের নকআউটে উঠে গেছে তারা। মঙ্গলবার রাতে অস্ট্রিয়ার ক্লাব এফসি সলজবুর্গকে ২-০ গোলে হারায় ইয়ুর্গেন ক্লপের দল। অল রেডদের হয়ে একটি করে গোল করেন নাবি কেইটা ও মোহামেদ সালাহ।

লিভারপুলের রাতে নকআউট নিশ্চিত করেছে ইংল্যান্ডের আরেক ক্লাব চেলসিও। তারা ২-১ গোলে হারায় ফরাসি ক্লাব লিঁলেকে। ব্লুজদের হয়ে গোল করেন টামি আব্রাহাম ও সিজার অ্যাসপিলিকুয়েটা।

গত আসরে চ্যাম্পিয়ন হলেও নকআউট নিশ্চিত করতে শেষ ম্যাচ পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হয়েছিল লিভারপুলকে। এবারও তাই। গত বছরও শেষ ম্যাচে অন্তত এক পয়েন্টের হিসাব ছিল, এবারও হিসাবটা সেই একই। গত বছরের মতো এবারও হিসাবটা মিলে গেল।

আগের দেখায় লিভারপুলের মাঠে চোখে চোখ রেখে লড়াই করেছিল সলজবুর্গ। অ্যানফিল্ডের সেই ম্যাচে লিভারপুল শেষ পর্যন্ত জিতেছিল ৪-৩ গোলে। এদিনও শুরুতে লড়াই হয় জমজমাট। প্রথমার্ধে একাধিক গোলের সুযোগ নষ্ট করে ‍দুদল। গোল নষ্টের তালিকায় সালাহ এবং আরলিং ব্রাউট হালান্ডও আছেন। হালান্ড আবার চলতি মৌসুমে এই ম্যাচের আগে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের প্রতিটি ম্যাচেই গোল করেছেন।

প্রথমার্ধ গোলশূন্য শেষ হওয়ার পর দ্বিতীয়ার্ধের ৫৭ মিনিটে গোলের দেখা মেলে। ৫৭ মিনিটে সাদিও মানের ক্রস থেকে গোল করেন নাবি কেইটা। এর এক মিনিট পরই স্কোরলাইন হয়ে যায় ২-০। অবিশ্বাস্য এক গোল করেন সালাহ।

মিশরীয় তারকার দ্বিতীয় গোলই সলজবুর্গের গতি ‘মেরে ফেলে’। এরপর আক্রমণের ধার বেড়ে যায় লিভারপুলের। একাধিক আক্রমণের ফাঁকে মানের একটি শট অল্পের জন্য ক্রসবারের উপর দিয়ে চলে যায়। শেষ পর্যন্ত আর কোনো গোল না হওয়ায় ২-০ জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে লিভারপুল।

এই জয়ে ৬ ম্যাচে ১৩ পয়েন্ট নিয়ে গ্রুপের শীর্ষে থেকে নকআউট নিশ্চিত করল লিভারপুল। তাদের চেয়ে এক পয়েন্ট কম নিয়ে নকআউটে নাপোলিও। মঙ্গলবার রাতে তারা ৪-০ গোলের বড় ব্যবধানে হারায় জেঙ্ককে। ছয় ম্যাচে সাত পয়েন্ট নিয়ে তিনে থেকে শেষ করে সলজবুর্গ। আর ছয় ম্যাচ থেকে মাত্র এক পয়েন্ট অর্জন করতে সক্ষম হয় জেঙ্ক।

বিজ্ঞাপন

অন্যদিকে, লিঁলের বিপক্ষে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই শেষে ঘরের মাঠে জেতে চেলসি। প্রথমার্ধের ১৯ মিনিটে দলকে এগিয়ে দেন টামি আব্রাহাম। ৩৫ মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন অ্যাসপিলিকুয়েটা।

নকআউটে যেতে হলে এই ম্যাচে জিততেই হত চেলসিকে। তবে ভয় ছিল তাদের ঘরের মাঠের পারফরম্যান্স। এই ম্যাচের আগে স্টামফোর্ড ব্রিজে টানা পাঁচটি চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ম্যাচ হেরেছিল চেলসি। যেটা এই প্রতিযোগিতায় তাদের ক্লাবের ইতিহাসে সবচেয়ে বাজে পারফরম্যান্স।

গ্রুপ ‘এইচ’র তলানির দল হলেও এদিন ম্যাচে চেলসিকে বেগ দেয় ফরাসি ক্লাবটি। ৭৮ মিনিটে এক গোল শোধ করে স্বাগতিক দর্শকদের মনে ভয়ও ধরিয়েছিল তারা। তবে শেষ পর্যন্ত নার্ভ ধরে রেখে ম্যাচ জিতে নেয় ফ্র্যাঙ্ক ল্যাম্পার্ডের দল।

এই মৌসুমে ইংল্যান্ড থেকে চারটি দল চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শেষ ষোলোতে উঠল। লিভারপুল, ম্যানচেস্টার সিটি, টটেনহ্যাম হটস্পারের সঙ্গে চেলসি।

এই জয়ে ছয় ম্যাচে ১১ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে থেকে নকআউটে গেল চেলসি। তাদের সমান ১১ পয়েন্ট হলেও গোল ব্যবধানে এগিয়ে থাকায় গ্রুপের শীর্ষে ভ্যালেন্সিয়া। ১০ পয়েন্ট নিয়ে তিনে আয়াক্স। মঙ্গলবার রাতেই ভ্যালেন্সিয়ার কাছে ১-০তে হেরে বিদায় নেয় গত আসরের সেমিফাইনালিস্ট ডাচ ক্লাব আয়াক্স। লিঁলের পকেটে মাত্র এক পয়েন্ট।

রাতের অন্য দুই ম্যাচের একটিতে রুশ ক্লাব জেনিত সেইন্ট পিটার্সবার্গকে ৩-০ গোলে হারায় পর্তুগিজ ক্লাব বেনফিকা। এছাড়া লিঁও এবং লিপজিং ম্যাচটি ২-২ গোলে ড্র হয়।

শেয়ার করুন: