চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

দেশে ব্যবহারের অনুমতি পেলো অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিন

ভারতের সেরাম ইন্সটিটিউট থেকে কেনা অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রোজেনেকার ভ্যাকসিন দেশে ব্যবহারের অনুমতি দিয়েছে ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তর।

বৃহস্পতিবার রাতে ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তর জরুরি জনস্বাস্থ্য কমিটির সুপারিশক্রমে সেরাম ইন্সটিটিউট থেকে কেনা অ্যাস্ট্রেজেকার ভ্যাকসিন ব্যবহারের অনুমতি দেয়া হয়।

বিজ্ঞাপন

এর আগে বৃহস্পতিবার সকালে করোনা মহামারি পরিস্থিতিতে জরুরি জনস্বাস্থ্য ইস্যুতে সেরাম থেকে কেনা অ্যাস্ট্রেজেনেকার ভ্যাকসিন ব্যবহারে ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তরকে সুপারিশ করে ১৩ সদস্যের পরামশর্ক কমিটি।

বিজ্ঞাপন

ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তরের ওই মিটিংয়ে কমিটির পক্ষ থেকে জানানো হয়,  যেহেতু অক্সফোর্ড আ্যাস্ট্রেজেনেকার উদ্ভাবিত ভ্যাকসিন যুক্তরাজ্যের সর্বোচ্চ সংস্থা ইতিমধ্যে অনুমোদন দিয়েছে এবং ব্যবহার হচ্ছে তাই অক্সফোর্ডের উদ্ভাবিত সেরাম ইন্সটিটিউটের ভ্যাকসিন ব্যবহার করা যেতে পারে।

কমিটির সভাপতি অধ্যাপক কামাল হোসেনের সভাপতিত্বে ওই মিটিংয়ে সেরাম থেকে কেনা ভ্যাকসিনটি বাংলাদেশে ব্যবহারের জন্য মূল নাম ঠিক রেখে একটি নাম নির্ধারণ এবং আর কিছু কোয়ারি করার কথা বলা হয়।

বাংলাদেশে ভ্যাকসিনের ডিস্টিবিউটর সংস্থার পক্ষে উল্লেখিত সকল কাগজ জমা দেয়। এরপর রাতে ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তর জরুরি জনস্বাস্থ্য কমিটির সুপারিশক্রমে সেরাম ইন্সটিটিউট থেকে কেনা অ্যাস্ট্রেজেকার ভ্যাকসিন ব্যবহারের অনুমতি দিল।

এর আগে সোমবার ভারতের সেরাম ইন্সটিটিউট থেকে ভ্যাকসিন আমদানির অনুমতিতে ডিস্টিবিউটর সংস্থা বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালকে এনওসি (নো অবজেকশন লেটার) দিয়েছিল ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তর। ঔদিন বেক্সিমকো ফার্মার পক্ষে আবেদন করে এবং ব্যবহারের অনুমতি চেয়ে অ্যাস্ট্রেজেনেকার ভ্যাকসিন সম্পর্কিত সকল কাগজ পত্র জমা দেয়।