চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

দেশীয় শিল্প রক্ষায় বিদেশি সিগারেটের দাম বাড়ানোর দাবি

দেশীয় শ্রমঘন বিড়ি শিল্পকে সুরক্ষা দিতে বিদেশি কোম্পানিগুলোর কম দামি সিগারেটের দাম আরও বাড়ানোর দাবি জানিয়েছেন রংপুরের তামাক চাষীরা।

মঙ্গলবার প্রস্তাবিত ২০২১-২০২২ অর্থবছরের বাজেট প্রতিক্রিয়া জানাতে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এই দাবি জানিয়েছেন তামাক চাষী ও ব্যবসায়ী সমিতি।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানিয়ে সংবাদ সম্মেলন থেকে তামাকের ন্যায্যমূল্যসহ ৬ দফা দাবি জানানো হয়।

লিখিত বক্তব্যে সমিতির সাধারণ সম্পাদক মো: মাসুম ফকির বলেন, উত্তরবঙ্গের বিশেষ করে বৃহত্তর রংপুরের বেশির ভাগ মানুষ তামাক চাষের সঙ্গে জড়িত। এখানকার মাটিতে বালির পরিমাণ বেশি হওয়ায় অন্য ফসলের ফলন ভালো হয় না। এজন্য আমরা তামাক চাষ করে জীবিকা নির্বাহ করি। এই তামাক ব্যবহার হয়ে থাকে বিড়ি শিল্পের কাঁচামাল হিসেবে। তাই তামাক চাষী ও ব্যবসায়ীরা বিড়ি শিল্পের সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িত।

বিজ্ঞাপন

তিনি বলেন, এবারের বাজেটে বিড়ি শিল্পের উপর শুল্ক বৃদ্ধির প্রস্তাব না করায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, অর্থমন্ত্রী ও জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যানসহ সংশ্লিষ্ট সবাইকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি।

দেশীয় বিড়ি শিল্পকে সুরক্ষা দেয়ার আহ্বান জানিয়ে এই তামাক চাষী বলেন, বর্তমান বাজারে নিম্নস্তর সিগারেটে প্রায় ৭২ শতাংশ বাজার দখল করে আছে, যা বহুজাতিক কোম্পানীর দখলে। সিগারেটের এই নিম্নস্তরটিতে শুল্ক বাড়ালে সরকার বিপুল পরিমাণ রাজস্ব আহরণ করতে পারবে। সেই সাথে বৃহত্তর রংপুর অঞ্চলের হাজার হাজার তামাক চাষী ও ব্যবসায়ীদের ব্যবসা এবং জীবন জীবিকার মান উন্নয়ন সহায়ক হবে।

এসময় তামাকের ন্যায্য মূল্য নির্ধারণ, তামাক বিক্রয়ের নিশ্চয়তা, গত বাজেটে বিড়ির উপর বৃদ্ধিকৃত ৪ টাকা মূল্যস্তর কমানো, বিড়িতে আরোপিত ১০ শতাংশ অগ্রিম আয়কর কমানো, বহুজাতিক কোম্পানীর আগ্রাসন থেকে তামাকের সুরক্ষা ও নিম্নস্তরের সিগারেটের উপর শুল্ক বৃদ্ধিসহ কয়েকটি দাবি জানান তারা।

এসময় উপস্থিত ছিলেন সমিতির সভাপতি মজিবর রহমান, ইউপি চেয়ারম্যান হামিদুল হক, মিজানুর রহমান মিজান, ফারুক হোসেন প্রমুখ।

বিজ্ঞাপন